অপপ্রচার ছড়ানোর বিরুদ্ধে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দেশের ব্যাপক উন্নয়নের পরও দেশে-বিদেশে অপপ্রচার চালাচ্ছে এমন লোকজনের বিরুদ্ধে দলের নেতা-কর্মীদের সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন,‘এতো উন্নয়নের পরও কিছু মানুষ বিদেশে ও দেশে বসে অপপ্রচার করছে। এদের বিরুদ্ধে সচেতন হতে হবে, অপপ্রচারের জবাব দিতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার বিকেলে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকের সভাপতিত্বকালে দেয়া প্রারম্ভিক ভাষণে একথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের অপকর্মের কথাগুলো তাঁর দলের নেতা-কর্মীদের জনগণকে অন্তত স্মরণ করিয়ে দেয়া উচিত, তাদের অত্যাচারের কথা আবারো তুলে ধরা উচিত, কেননা দেশের মানুষ অতীত ভুলে যায়।

শেখ হাসিনা বলেন, উন্নয়নশীল দেশ কেন হলাম সেজন্যও দেশের কিছু মানুষ অপপ্রচার করে। এরা কারা, এদের উদ্দেশ্যটা কি?

প্রধানমন্ত্রী গোপন ষড়যন্ত্রের ইঙ্গিত তুলে ধরে বলেন, তথাকথিত বুদ্ধিজীবী শ্রেণীর একটি অংশ মিটিং করছেন কি করে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় না রাখা যায়, কারণ হয়তো এটাই যে, আওয়ামী লীগ দেশের উন্নয়ন করেছে।

তিনি বলেন, ‘জনগণের শক্তিই আওয়ামী লীগের শক্তি। আমরা জনগণের সেবায় পরিকল্পিতভাবে কাজ করে যাচ্ছি বলেই দেশের উন্নয়ন হচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন বিশ্বে মর্যাদাপূর্ণ অবস্থানে পৌঁছে গেছে। আমরা জনগণের কল্যাণে কাজ করছি। উন্নয়নের ছোঁয়া গ্রাম পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। সকল শ্রেণী পেশার মানুষ উন্নয়নের ছোঁয়া পেয়েছে।

তিনি প্রশ্ন তোলেন, বিএনপিকে কোন আশায় মানুষ ভোট দেবে? পলাতক আসামী যে দল চালায় তাদের কি আশায় ভোট দেবে, বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী তারেক রহমানকে উদ্দেশ্য করে বলেন, এরা দেশের গরীবের টাকা লুট করে বিদেশে পাচার করেছে। বিদেশে বসে আরাম আয়েশে আছে। এই আয়ের উৎস কি?