অর্থ আত্মসাৎ মামলায় এবি ব্যাংকের ১৫ জনকে গ্রেফতারের নির্দেশ হাইকোর্টের

এবি ব্যাংকের ১৭৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ মামলায় ব্যাংকটির কর্মকর্তাসহ ১৫ জনকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে তাদের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

দুই আসামির জামিন চেয়ে আবেদনের শুনানি নিয়ে এ আদেশ দেন আদালত।

আদালতে আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী ছিলেন গোলাম আব্বাস দুলাল। দ’ুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, ‘প্রাথমিক অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয় এবি ব্যাংকের ১৭৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ হয়েছে। এই সূত্র ধরে গত ৯ জুন একটি মামলা হয়। ওই মামলায় ১৭ জনকে আসামি করা হয়। এই ১৭ জনের মধ্যে আসামি শহীদুল ইসলাম ও আব্দুর রহিম আগাম জামিনের আবেদন করে। আগাম জামিনের পরে তারা নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। নিম্ন আদালত তাদেরকে জেলে পাঠিয়ে দেয়। এর পর জেল থেকে তারা জামিন চেয়ে নিয়মিত আপিল করেন। আজকে আদালতে শুনানি শেষে দু’জনের জামিন প্রশ্নে রুল দেন।’ একই সঙ্গে আগামী সাত দিনের মধ্যে অন্য ১৫ আসামিকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন আদালত। পাশাপাশি ১৫ জন যাতে বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারে সে জন্য নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয় বলে জানান এডভোকেট খুরশীদ আলম খান।

ওই ১৫ আসামি হলেন এরশাদ আলী, এবিএম আব্দুস সাত্তার, আনিসুর রহমান, রুহুল আমিন, ওয়াসিকা আফরোজী, মুফতি মুস্তাফিজুর রহমান, সালমা আক্তার, মোহাম্মদ এমারত হোসেন ফকির, তৌহিদুল ইসলাম, শামীম এ মোরশেদ, খন্দকার রাশেদ আনোয়ার, সিরাজুল ইসলাম, মাহফুজ উল ইসলাম, মশিউর রহমান চৌধুরী, শামীম আহমেদ চৌধুরী।