আন্তর্জাতিক অনলাইন প্রতারক চক্রের ১৫ জন গ্রেফতার

ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ করার অপরাধে আন্তর্জাতিক অনলাইন প্রতারক চক্রের ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

বুধবার রাজধানীর বসুন্ধরা ও খিলক্ষেত এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ বসবাসকারী আন্তর্জাতিক পাচারকারী চক্রের ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বৃহস্পতিবার গনমাধ্যমে শাখার সিনিয়র এএসপি মিজানুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা দীর্ঘদিন ফেসবুকে বিভিন্ন ভুয়া নামে অ্যাকাউন্ট খুলে মহিলা পুরুষ ও ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে সখ্যতা গড়ে তুলত। গ্রেফতারকৃতরা নিজেদের আফগানিস্তানের যুদ্ধরত নারী-পুরুষ সৈনিক অথবা বিদেশি অথবা জাতিসংঘের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিয়ে সখ্যতা গড়ে তুলে এদেশীয় ব্যবসায়ীদের নিকট ব্যবসার সুযোগ তৈরি করে দেয়ার কথা বলতো। এক পর্যায়ে তারা জানাতো যে তাদের বন্ধু বাংলাদেশে যাবে যার কাছে সে তার জন্য দামি উপহার পাঠাবে। উপহার হিসেবে দামি ফোন, অলংকার অথবা বিপুল পরিমাণে নগর টাকা থাকার কথা বলতো। এরপরে ওই বন্ধু বাংলাদেশের টার্গেট করা ব্যক্তি কে দিয়ে তার বিদেশে অবস্থানরত বন্ধু দিয়ে কথা বলাতো যে তার উপহার সামগ্রী কাস্টমসে আটকে আছে তা ছাড়ানোর জন্য কিছু অর্থের প্রয়োজন। আর এ কথা বলে হাতিয়ে নিতো মোটা অংকের টাকা।

তিনি আরো জানান, এই প্রতারক চক্রটি সাদা কাগজে কিছু রাসায়নিক দ্রব্য প্রয়োগ করে ডলার তৈরি করে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিতো। এভাবেই তারা লোভের একটা ফাঁদ তৈরি করতো এবং বিষয়টাকে বিশ্বাসযোগ্য করার জন্য এদেশীয় কিছু লোক সহযোগিতা নিতো। তারা বিভিন্ন ব্যাংকের একাউন্ট নম্বর জোগাড় করে দিত বিনময়ে তারা এবং ওই সমস্ত অ্যাকাউন্টের মালিকগন নির্দিষ্ট কমিশন পেয়ে যেত। পরবর্তীতে তারা তাদের ব্যবহৃত নম্বর বন্ধ করে দিত।

এই চক্রের মূল হোতা মার্ক নামের একজন নাইজেরিয়ান নাগরিক। ওই চক্রটির প্রতি মাসে ৩০ থেকে ৩৫ লক্ষ টাকা উপার্জন করে মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে টাকা বিদেশে পাঠিয়ে দিত ।

গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে নাইজেরিয়ার নাগরিক সাতজন, উগান্ডা নাগরিক ২ জন, ক্যামেরুনের নাগরিক ১ জন, কঙ্গো নাগরিক ১ জন, লাইব্রেরিয়ান নাগরিক ১ জন, তাঞ্জানিয়ার নাগরিক ১ জন, মোজাম্বিকের ১ জন।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ২৯ টি মোবাইল সেট, দুটি ল্যাপটপ,নগদ ১,০০৫৮৫ টাকা ও ১০১৩ ডলার জব্দ করা হয়।

নিউজ ডেস্ক / বিজয় টিভি