কাঠমান্ডুর নাট্যশালায় মঞ্চস্থ হল নাটক ‘আমি শেখ মুজিব’

৭৮

১৯৭১ সালে বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতী দানকারী দেশ নেপাল। তখন থেকেই বাংলাদেশ অ নেপালের মদ্ধে রয়েছে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ১৫ ডিসেম্বর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে নিয়ে নাটক মঞ্চায়নের মাধ্যমে নেপাল উদযাপন করছে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ।

‘আমি শেখ মুজিব’– শিরনামের নাটকটি লিখেছেন আনিসুর রহমান। নেপালের শীর্ষস্থানীয় নাট্যশালা ওয়ান ওয়ার্ল্ড থিয়েটার নাটকটি প্রযোজনা করছে। একই সঙ্গে ফেসবুক এবং জুমে নেপালের স্থানীয় সময় বেলা ৩টা ৪৫ মিনিটে এবং বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় সরাসরি দেখা গেছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি জাতির আধুনিক রূপকার, একটি রাষ্ট্রের স্থপতি। প্রত্যন্ত জনপদ গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নিয়ে তিনি ধাপে ধাপে চড়াই–উতরাই পেরিয়ে বাংলাদেশের স্থপতি হন। দেশ ও দেশের মানুষকে মুক্তির পথ দেখান। এই নাটকে সেই সংগ্রামী জীবনের অনেকটাই উঠে এসেছে।

বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ পথপরিক্রমায় তাঁর মনের অবস্থা কী, তা ঘটনা পরম্পরায়, কিছুটা কল্পনায় গদ্য–পদ্য মিলিয়ে লেখা ‘আমি শেখ মুজিব’। মহাকাব্য ও মঞ্চনাটকের বৈশিষ্ট্য অক্ষুণ্ন রেখে এখানে বিশ শতকের ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। লেখক আনিসুর রহমান জানান, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নেপালের নাট্যশিল্পী ও নির্দেশক রাজকুমার পুদাসাইনি নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনিই এই নাটকে অভিনয় করেছেন। মহাকাব্যের নায়ক বঙ্গবন্ধুর প্রয়াণের মধ্য দিয়ে স্বগতসংলাপটি শেষ হয়েছে।

নাটকটি নেপালি ও ইংরেজি ভাষায় প্রযোজিত নাটকটির নির্দেশনা বৈচিত্র্যের প্রয়োজনে দু–একটি বাংলা সংলাপ রাখা হয়েছে। শিগগির ‘আমি শেখ মুজিব’ বইটির ইংরেজি সংস্করণ একযোগে প্রকাশিত হবে ইউরোপ ও আমেরিকা থেকে। ২০১৯ সালে সুইডেনের নামকরা প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান স্মক্কাডল থেকে এপিক মনোলগটির সুইডিশ সংস্করণ প্রকাশিত হয়।

নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি

You might also like