কুষ্টিয়ায় শীতে বেড়েছে ঠান্ডা জনিত রোগ

৪৭

কুষ্টিয়ায় হঠাৎ করে শীত বেড়ে যাওয়ায় ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন বয়স্ক ও শিশুরা। এদিকে, আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ায় দেখা দিয়েছে সেখানে দেখা জায়গার সংকট। বেড না পাওয়ায় অনেকে বাধ্য হচ্ছেন নিচে বেড পেড়ে চিকিৎসা নিতে। অন্যদিকে, এ শীতে শিশু ও বৃদ্ধদের দিকে বাড়তি নজর দেয়ার পরামর্শ দিলেন চিকিৎসকরা।

কুষ্টিয়ায় শীত ও ঠান্ডা জনিত কারণে বেড়েছে ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্টজনিত রোগ। আক্রান্তের বেশির ভাগই বয়স্ক ও বিভিন্ন বয়সের শিশু।

রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় তাদের সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল সদর হাসপাতালে, শিশু ওয়ার্ডের মাত্র ২০টি বেড থাকলেও সেখানে গত দু’দিনে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ২১ জন শিশু রোগী ভর্তিসহ বারান্দা ও মেঝেতে যত্র তত্র বিছানা করে চিকিৎসা নিচ্ছে ৮০ জন শিশু রোগী।

প্রতিদিন যত রোগী চিকিৎসা পেয়ে ছাড়পত্র নিয়ে বাসায় ফিরছে তার চেয়ে দিগুণ আবার ভর্তি হচ্ছেন এখানে। শিশুদের অভিবাবকরা জানান, হাসপাতালের থেকে দুইটি ওষুধ সরবরাহ করা হলেও বেশির ভাগ ওষুধ বাইরে থেকে কিনতে হচ্ছে তাদের। ভর্তিরত শিশুদের শ্বাসকষ্টে নেবুলাইজার দিলে কর্তব্যরত নার্স ও আয়া শিশু প্রতি একবার দিলেই নিচ্ছেন ১০ টাকা। আর দিনে ৪ বার দিলে নিচ্ছেন ৪০ থেকে ৫০ টাকা। এতে বাড়তি টাকা গুণতে হচ্ছে তাদের।

অন্যদিকে, আবাসিক এ মেডিকেল অফিসার বলেন, রোগীদের কাছ থেকে গ্যাস বাবদ টাকা নেয়ার অভিযোগ এখন পর্যন্ত তিনি পাননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি।

গেল ৩ দিনে, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল সদর হাসপাতালে ডায়রিয়ায় নিমোনিয়া ও শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ৬৭জন শিশু চিকিৎসা নিয়েছেন। তাই শিশু ও বয়স্কদের প্রতি বিশেষ যত্ন নেওয়ায় পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

You might also like