গুজব উপেক্ষা করে ভ্যাকসিন নিচ্ছেন জনগণ : প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা

৪৩

মহিলা শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রচেষ্টায় বিশ্বের অনেক উন্নত দেশের আগেই বাংলাদেশে কোভিড-১৯ প্রতিরোধী ভ্যাকসিন এসেছে। এরই মধ্যে সকল জেলা-উপজেলায় টিকা প্রদান শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, একটা বিশেষ দল আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে তারা এ ভ্যাকসিন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। বিএনপি-জামাত বিভিন্নভাবে অপপ্রচার, গুজব ছড়াচ্ছে। তবে দেশের জনগণ এ গুজব উপেক্ষা করে ভ্যাকসিন নিচ্ছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) ময়মনসিংহ ও বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের সম্মাননা প্রদান করা হয়। ঢাকায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এসব কথা বলেন। ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার মো: কামরুল হাসান এনডিসি ও বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার ড. অমিতাভ সরকার এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কাজী রওশন আক্তার।

প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, গৃহহীনদের ঘর উপহার দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের ইতিহাসে অনন্য নজির সৃষ্টি করেছেন। তিনি বলেন, ৬৯ হাজার ৯০৪ পরিবারের মধ্যে ৬৬ হাজার ১৮৯টি ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে ঘর প্রদান করা হয়। এই ঘর প্রদানের ক্ষেত্রে স্বামী-স্ত্রী দুজনের নামে ঘরের দলিল করা হয়েছে। এর মাধ্যমে নারীর অধিকার, সুরক্ষা ও সঠিক অংশীদারিত্ব নিশ্চিত হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ প্রদান করছে। তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে। নারীরা আজ আর ঘরে বসে নেই, তারা এখন সফল উদ্যোক্তা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণ করেছেন। ডিজিটাল বাংলাদেশে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে নারীরা ই-কমার্স ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ে বিপ্লব সৃস্টি করেছে। তিনি বলেন, জয়িতাকে দেশব্যপী ছড়িয়ে দিতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় নারী বান্ধব বিপণী কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে।

বরিশাল বিভাগীয় পর্যায়ে নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ পাঁচ জয়িতা হলেন- অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী ক্যাটাগরীতে বরিশাল সদরের হাছিনা বেগম নীলা, শিক্ষা ও চাকুরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী উজিরপুরের হিরণময়ী দাশ রুনু, সফল জননী ক্যাটাগরীতে পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার হেলেন্নেছা বেগম, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করা ঝালকাঠি সদরের মোসা: নাজমুন্নাহার, সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখেন পিরোজপুরের ইন্দুরকানি উপজেলার নাজমুন্নাহার। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং দুই বিভাগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

You might also like