চট্টগ্রামে হাই কোর্টের সার্কিট বেঞ্চের দাবিতে আন্দোলনের আহ্বান

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, “ঢাকাকেন্দ্রিক আইনজীবীদের আভিজাত্য এবং কুলীনতার কারণে আমাদের সার্কিট বেঞ্চটা হচ্ছে না। এটাই হচ্ছে বাস্তবতা। এই বাস্তবতার বিরুদ্ধে আমাদের প্রতিবাদী হতেই হবে এবং শক্তিশালী ভাবে উপস্থাপন করতে হবে।”

সোমবার চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির একাউন্টিং, বিলিং ও ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে  তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, এরশাদ আমলে চট্টগ্রামে হাই কোর্টের সার্কিট বেঞ্চ প্রতিষ্ঠিত হলেও ১৯৮৯ সালে আপিল বিভাগের রায়ে ঢাকার বাইরের হাই কোর্ট বেঞ্চগুলো বাতিল হয়ে যায়। এরপর ১৯৮৯ সালেই চট্টগ্রামের সন্তান আইনজীবী মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে চট্টগ্রামে হাই কোর্টের সার্কিট বেঞ্চ স্থাপনের দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়েছিল।

এরপর চট্টগ্রামে একাধিক অনুষ্ঠানে এসে সার্কিট বেঞ্চ স্থাপনে আগ্রহের কথা জানিয়েছিলেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা। কিন্তু তা আর আলোর মুখ দেখেনি।

নওফেল বলেন, “আমার মৌলিক অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে পঞ্চগড়ে। আরও বেশি আর্থিক অধিকার ক্ষুণ্ন করে কেন ঢাকায় এসে রিট পিটিশন করতে হবে? তাহলে মৌলিক অধিকার আমার কীভাবে রক্ষা পেল?”

‘রিট জুরিসডিকশন অবশ্যই ডিসেন্ট্রালাইজ করতে হবে’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, “নয়ত সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার আমরা নিশ্চিত করতে পারব না। নির্বাহী বিভাগ থেকে সকল পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আমাদের বিচার বিভাগকে অগ্রণী ভূমিকা নিতে হবে।”

You might also like