চাঁদপুর মহিলা লীগের সদস্যকে হত্যা, স্বামী আটক

৭১

চাঁদপুরে কেন্দ্রীয় মহিলা লীগের সদস্য ও গল্লাক আদর্শ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ শাহীন সুলতানা ফেন্সীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে ।

সোমবার রাতে চাঁদপুর শহরের ষোলঘর এলাকায় নিজ বাসভবন থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় তার স্বামী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জহিরুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহতের আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয়রা জানায়, শাহীন সুলতানা ফেন্সি তিন কণ্যা সন্তানের জননী। তার দুই মেয়ে দেশের বাইরে এবং এক মেয়ে কুমিল্লাতে অবস্থান করেন। তার স্বামী অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম গোপনে আরেকটি বিয়ে করেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ লেগে থাকত। প্রায় সময়ই জহির তার স্ত্রীকে মারধোর করতো বলে অভিযোগ।

নিহত শাহিন সুলতানা ফেন্সির ভাই ষোলঘর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নাঈমুর রহমান খান বলেন, অ্যাড. জহিরুল ইসলামের প্রথম স্ত্রী আমার বোন শাহিন সুলতানা ফেন্সি। তার অনুমতি না নিয়ে ৫বছর আগে জুলেখা নামের একটি মেয়েকে বিয়ে করে। এনিয়ে তাদের পরিবারের মধ্যে মনমালিন্য চলছিলো। আমার বোন শাহিন সুলতানা ফেন্সিকে অ্যাড. জহিরুল ইসলাম হত্যা করেছে। আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

নিহত শাহিন সুলতানা ফেন্সির আরেক ভাই ফোরকান খান বলেন, হত্যার পূর্বে অ্যাড. জহিরুল ইসলাম কিছু লোকজন নিয়ে বাড়ির আশপাশে ঘোরাঘুরি করতে দেখা যায়। এরকিছুক্ষণ পরেই আমরা ফেন্সির হত্যার খবর শুনতে পাই। এঘটনা অ্যাড. জহিরুল ইসলাম ছাড়া আর কেউ করতে পারে নাসোমবার রাতে জহির তার স্ত্রীকে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ করেন তার আত্মীয়-স্বাজনরা।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘরের দরজা খোলা অবস্থায় দেখে ভেতরে প্রবেশ করেন। এসময় শোবার ঘরের খাটের সামনে মেঝেতে তার রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখেন। মাথায় আঘাতের কারণে ফেন্সী নিহত হয়েছেন বলে প্রাথমিক ভাবে নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ।

তদন্ত শেষে এই হত্যাকান্ডের সাথে কে জড়িত রয়েছে তা বলতে পারবে পুলিশ। এ ঘটনায় অ্যাড. জহিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

 

 

নিউজ ডেস্ক / বিজয় টিভি

You might also like