চালু হল ‘মাদার অব হিউম্যানিটি পদক’

৭২

সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে পাঁচটি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’ দেবার অনুমোদন দেয়া হয়। এ জন্য ‘মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক নীতিমালা-২০১৮’-এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এখানে মাদার অব হিউম্যানিটি বলতে প্রধানমন্ত্রীকে বোঝানো হয়েছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে উনাকে মাদার অব হিউম্যানিটির স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, সেটারই প্রতিফলন হিসেবে এ পদক চালু করা হচ্ছে। বয়স্ক, বিধবা, স্বামী নিগৃহীতা নারীদের কল্যাণ ও পুনর্বাসনে অবদান এবং প্রান্তিক-অনগ্রসর ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর সামাজিক সুরক্ষা, আত্মনির্ভরশীলকরণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে অবদানের জন্য এ পুরস্কার দেয়া হবে। নীতিমালা অনুযায়ী, পদকের সংখ্যা হবে প্রতিবছর ব্যক্তি পর্যায়ে তিনটি এবং সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে দুটিসহ মোট পাঁচটি।

পদকপ্রাপ্ত ব্যক্তি ও সংস্থাকে ১৮ ক্যারট মানের ২৫ গ্রাম স্বর্ণের একটি পদক, পদকের একটি রেপ্লিকা, ২ লাখ টাকা ও সম্মাননা সনদ দেয়া হবে। ‘মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’ অন্যতম সর্বোচ্চ জাতীয় পদক হিসেবে গণ্য হবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রতিবছর ২ জানুয়ারি সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত জাতীয় সমাজসেবা দিবস অনুষ্ঠানে এ পদক দেয়া হবে। প্রাথমিক বাছাইয়ের ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে জেলা কমিটি, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে হবে জাতীয় কমিটি।

মিয়ানমারের রাখাইনে নিপীড়নের মুখে পালিয়ে আসা লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়ায় গত বছর যুক্তরাজ্যভিত্তিক ‘চ্যানেল ফোর’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ অভিধায় ভূষিত করে। সেই নামেই পদক চালু করছে সরকার।

২০১৮ সালে এ পদক দেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে শফিউল বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের সেই প্রস্তুতি আছে কিনা জানি না। তবে পদক দেয়ার কার্যক্রম প্রতিবছর জুলাই মাস থেকে শুরু হবে।’

পদক কোন শ্রেণীর হবে, জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘এটা স্বাধীনতা ও একুশে পদকের সমমানের হবে।’

সভায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের বাস্তবায়নাধীন জাতীয় তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তির অবকাঠামো উন্নয়ন (২য় পর্যায় এবং প্রথম সংশোধিত প্রকল্প শীর্ষক) প্রকল্প, ইউনিয়ন পর্যায়ে ইন্টারনেট সংযোগ স্থাপন, ইন্টারনেট অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ, রেভিনিউ শেয়ারিংসংক্রান্ত প্রকল্প জাতীয় অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবে ঘোষণার প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে।

এ ছাড়া বাংলাদেশের অটিজমবিষয়ক জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল ইউনেস্কোর আন্তর্জাতিক জুরি বোর্ডের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন জানানো হয় সভায়।

নিউজ ডেস্ক / বিজয় টিভি

You might also like