জয় তো দূরে থাক, গোলই পাচ্ছে না বার্সেলোনা

এমন একটা পরিস্থিতি যে আসবে, আঁচ করা যাচ্ছিল। যাকে কেন্দ্র করে গত একদশকেও বেশি সময় বার্সেলোনার সাফল্যের গল্প লেখা হয়েছে, সেই লিওনেল মেসি ছেড়ে গেছেন ক্লাব। তাও আবার যাওয়াটা অনেকটা আচমকায়। নতুন করে গুছিয়ে উঠতে রোনাল্ড কোম্যান কতটা মুন্সিয়ানা দেখাতে পারেন, সেটাই ছিল দেখার। কিন্তু অবস্থা দিন দিন খারাপের দিকেই যাচ্ছে। জয় তো দূরে থাক, গোলও ঠিকঠাক পাচ্ছে না মেসিবিহীন বার্সেলোনা।

লিগগুলোতে বার্সেলোনার একের পর এক হতাশাজনক পারফরম্যান্স দেখা যাচ্ছে। উয়েফা ও স্প্যানিশ লা লিগা মিলিয়ে শেষ পাঁচ ম্যাচে মাত্র একটিতে জিতেছে রোনাল্ড কোম্যানের শিষ্যরা, ড্র-ই হয়েছে তিনটি ম্যাচ।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে তুলনামূলক দুর্বল দল কাদিজের বিপক্ষে আরও একবার ড্র করেছে বার্সেলোনা। গত মৌসুমে নিজেদের ঘরের মাঠ কিংবা কাদিজের মাঠ দুই ম্যাচের একটিতেও জিততে পারেনি কাতালান ক্লাবটি।

কাদিজের মাঠে খেলতে গিয়ে বল দখলের লড়াইয়ে একক আধিপত্য ছিলো বার্সেলোনার। পুরো ম্যাচে প্রায় ৭০ ভাগ সময় বলের দখল নিজেদের কাছেই রাখে তারা। কিন্তু সে অর্থে কাদিজের রক্ষণভাগের তেমন কোনো পরীক্ষাই নিতে পারেনি বার্সা।

সারা ম্যাচে মাত্র ৬টি ছট করতে পেরেছেন মেমফিস ডিপাই, লুক ডি ইয়ংরা। যার মধ্যে মাত্র ২টি ছিলো লক্ষ্য বরাবর। অন্যদিকে ১৩টি শট করে কাদিজ, ৩টি রাখে লক্ষ্যেও। বার্সেলোনার নেহায়েত সৌভাগ্য, কোনো গোল হজম করতে হয়নি।

ম্যাচের ৬৫ মিনিটেই বড় ধাক্কাই খেয়েছে বার্সেলোনা। মাঝমাঠে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়কে ফাউল করায় দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন বার্সার অন্যতম ভরসার পাত্র লুক ডি ইয়ং। যার ফলে পরের ম্যাচটি খেলতে পারবেন না তিনি। অবশ্য ডি ইয়ংয়ের হলুদ কার্ডটি নিয়ে সংশয়ের জায়গা ছিলো অনেক।

এই হতাশাজনক ড্রয়ের পর পাঁচ ম্যাচে ২ জয় ও ৩ ড্রয়ে ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের সাত নম্বরে রয়েছে বার্সেলোনা। এক ম্যাচ বেশি খেলে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ১৪ নম্বরে কাদিজ।