ট্রাকচাপায় বাবা-মেয়ে নিহতের ঘটনায় মামলা, চালক গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কে ইটবোঝাই ট্রাকের চাপায় ওষুধ ব্যবসায়ী আলতাফ হোসেন (৪৫) ও তার কিশোরী মেয়ে মুক্তি আলিফ বেলী (১৪) নিহতের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

শনিবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুর পৌনে ২টায় নিহত বেলীর মা আয়েশা রহমান সিদ্দিকা বাদী হয়ে সড়ক পরিবহন আইনে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলাটি করেন।

মামলায় ট্রাকচালক হাবিবুর রহমানকে (২৮) একমাত্র আসামি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মো. রকিবুজ্জামান।

আসামি হাবিবুর পটুয়াখালী সদর উপজেলার হাজীখালী গ্রামের মৃত আব্দুল আহমদের ছেলে। ঘটনার পরপর স্থানীয়দের সহযোগিতায় আটক হাবিবুরকে মামলায় গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। দুপুর ২টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় আসামিকে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

জানা গেছে, স্বামী আলতাফের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর মেয়ে মুক্তি আলিফ বেলীকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে থাকতেন আয়েশা রহমান সিদ্দিকা। সেখানেই একটি বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে পড়তো বেলী। গত ৩ ডিসেম্বর মায়ের সঙ্গেই বাংলাদেশে বেড়াতে আসে। চলতি মাসের ২২ ডিসেম্বর তাদের যুক্তরাষ্ট্র ফেরার কথা ছিল। তবে শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর) দুপুরে শহরের জামতলা এলাকায় অবস্থিত খালার বাসা থেকে বাবার সঙ্গে একটি বিয়ের দাওয়াতে যাওয়ার উদ্দেশে রওনা হয় বেলী। দুপুর দেড়টার দিকে শহরের চাষাড়ায় জেলা পরিষদের ডাকবাংলোর সামনে ইটবোঝাই ট্রাকের চাপায় মর্মান্তিক মৃত্যু হয় বেলী ও তার বাবা আলতাফ হোসেনের।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, রিকশায় ছিলেন বাবা-মেয়ে। রিকশাটি শহরের জামতলা এলাকা থেকে চাষাড়ার দিকে যাচ্ছিল। ডাকবাংলোর মোড়ে রিকশাটিকে চাপা দেয় দ্রুতগামী ওই ট্রাক। ঘটনাস্থলে বাবা-মেয়ে ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে মারা যান। আহত হন রিকশাচালকও।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বেলীর বাবা আলতাফ হোসেন নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়নের সাওপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। সেখানেই তিনি একটি ওষুধের দোকান চালাতেন। প্রায় ছয় বছর আগে আলতাফ হোসেনের সঙ্গে আয়েশা রহমানের বিচ্ছেদ হয়। এরপরই মেয়েকে নিয়ে নিউইয়র্কে চলে যান আয়েশা। সেখানেই একটি স্কুলে ভর্তি করান মেয়েকে। বেলী তার বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। দীর্ঘদিন পর বাবা-মেয়ের দেখা হয়েছিল। এটাই তাদের শেষ দেখায় পরিণত হলো।

এদিকে, স্থানীয়দের সহযোগিতায় ঘটনাস্থল থেকেই ট্রাকের চালক হাবিবুর রহমান আটক হলেও মামলা হয়েছে ২৪ ঘণ্টা পর। এ বিষয়ে ওসি মো. রকিবুজ্জামান বলেন, ‘নিহত কিশোরীর মা বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন। জাতীয় পরিচয় সংগ্রহে দেরি হওয়াতে মামলা রুজু করতে দেরি হয়েছে। মামলায় একমাত্র আসামি ট্রাকের চালক। তাকে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।’

এর আগে, শুক্রবার রাতে নিহত বেলী ও বাবা আলতাফ হোসেনের ময়নাতদন্ত শেষে সোনারগাঁয়ে নিজ গ্রামে দাফন করা হয় তাদের। নিহত আলতাফের প্রতিবেশী ও বন্ধু হারুন অর রশীদ জানান, বাবা ও মেয়েকে পাশাপাশি দাফন করা হয়েছে।

You might also like