দীর্ঘ অপেক্ষার পর সেলিমের ‘কাজল রেখা’

শূন্য দশকের পর সবচেয়ে সুপারহিট ছবি ‘মনপুরা’। ২০০৯ সালে মুক্তি পায় ‘মনপুরা’ ছবিটি। সিনেমা হলগুলোতে দর্শক টেনে ছিল চলচ্চিত্রটি। মাল্টিপ্লেক্সগুলো সপ্তাহের পর সপ্তাহ তাদের বিলবোর্ড পরিবর্তন করেনি। চালিয়ে গেছে ‘মনপুরা’।

সাড়া জাগানো এই ছবিটি নির্মাণ করেছিলেন নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম। গল্পকথন ও এর বিন্যাস দর্শক ও সমালোচকের মন জয় করে নিয়েছিল। ছবিটি একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতে নেয়।

কথা ছিল ‘মনপুরা’ ছবির পর এই নির্মাতার দ্বিতীয় ছবি ‘কাজল রেখা’ দর্শকদের দিতে যাচ্ছে হয়তো নতুন কোন চমক। সবাই অপেক্ষা করছিল দ্রুত সময়ের মধ্যে নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম উপহার দিচ্ছেন আরেকটি ব্লকবাস্টার ছবি।

কিন্তু তা আর হয়নি। গেল এক দশক ধরে ছবিটি শুধু সংবাদপত্রেই শোভা পেয়েছে। প্রযোজক পাননি, নির্মাণের পরিবেশ পাননি, মনের মতো শিল্পী পাননি−কিন্তু হাল ছাড়েননি। বরং প্রতিনিয়ত ছবিটি নির্মাণ প্রক্রিয়া চালিয়ে গেছেন নীরবে।

মাঝে এই নির্মাতার ‘স্বপ্নজাল’ ছবিটি মুক্তি পায়। ফলে ‘কাজল রেখা’ নির্মাণ ও এর মুক্তির সম্ভাবনায় গুড়ে বালি দিয়ে সিনেমা হলগুলোতে শোভা পায় ‘স্বপ্নজাল’। এই ছবিটিও ছিল নিখাদ নিটোল কোন প্রেমের ছবি। কিন্তু ‘কাজল রেখা’?

মৈমনসিংহ গীতিকা থেকে উঠে এসেছে ‘কাজল রেখা’ সিনেমার গল্প। কিন্তু কোনও এক বিশেষ কারণে কোনও প্রযোজকই আগ্রহী হননি এই ছবিটির ব্যাপারে। অবশেষে চলতি অর্থবছরে ‘কাজল রেখা’র জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে ৫০ লাখ টাকার সরকারি অনুদান পাচ্ছেন নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম।

এই নির্মাতা জানান, দশ বছর ধরে ‘কাজল রেখা’ ছবির পাণ্ডুলিপি নিয়ে ঘুরলেও কখনও চরিত্র চূড়ান্ত করেননি। এবার করোনা পরিস্থিতি শেষ হলে শুরু করবেন শুটিং। আর সবকিছুই করতে চান আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে।

নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি