দেড় মাস ধরে অচলাবস্থায় বুয়েট

১১৮

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার অভিযোগপত্র জমা দেওয়ার পাঁচ দিন হয়ে গেলেও অভিযুক্ত ছাত্রদের স্থায়ী বহিষ্কার করেনি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) কর্তৃপক্ষ। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের বাকি দুটি দাবিও পূরণ হয়নি। ফলে শিক্ষার্থীরা পূর্বঘোষণা অনুযায়ী, শিক্ষা কার্যক্রম থেকে এখনো বিরত রয়েছেন।

বুয়েটের দায়িত্বশীল একাধিক শিক্ষক বলেছেন, শিক্ষার্থীদের দাবি বিবেচনায় নিয়ে প্রশাসন কাজ করছে। কিন্তু কবে নাগাদ সমাধান আসবে, সে বিষয়ে তাঁরাও স্পষ্ট করে বলতে পারছেন না।

১৩ নভেম্বর ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে আবরার হত্যা মামলার অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ। এর পরদিন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণা দেন, আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় অভিযোগপত্রে নাম আসা ছাত্রদের বুয়েট থেকে স্থায়ী বহিষ্কারসহ তিন দফা দাবি মানা হলেই কেবল তাঁরা ক্লাস-পরীক্ষায় ফিরবেন। শিক্ষার্থীদের অন্য দুটি দাবি হলো বুয়েটের আহসানউল্লাহ, তিতুমীর ও সোহরাওয়ার্দী হলে এর আগে ঘটে যাওয়া র‍্যাগিংয়ের ঘটনায় অভিযুক্তদের অপরাধের মাত্রা অনুযায়ী শাস্তি দিতে হবে। এ ছাড়া সাংগঠনিক ছাত্ররাজনীতি ও র‍্যাগিংয়ের জন্য সুস্পষ্টভাবে শাস্তির নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে। বিষয়টি একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেটে অনুমোদন করে বুয়েটের অধ্যাদেশে সংযোজনের জন্য পরবর্তী ধাপে পাঠাতে হবে।

কিন্তু গতকাল রোববার পর্যন্ত এসব দাবি পূরণ হয়নি। শিক্ষার্থীরা বলছেন, প্রথম দুটি দাবি পূরণ হলে তাঁরা আসন্ন টার্ম ফাইনাল পরীক্ষার তারিখ মেনে নেবেন। কিন্তু পরীক্ষা শুরু হওয়ার অন্তত সাত দিন আগে তৃতীয় দাবিটি পূরণ হলে পরীক্ষায় অংশ নেবেন।

গত ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী। এরপর থেকে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। আর তখন থেকেই বুয়েটে অচলাবস্থা চলছে।

এদিকে বুয়েটের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আজ বেলা আড়াইটায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

 

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/ বিজয় টিভি

You might also like