নড়াইলে আবারও এসি ল্যান্ড’র বিরূদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ আরাফাত হোসেনের বিরূদ্ধে নানাবিধ দূর্ণীতি, অনিয়ম ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারি কমিশনার আরাফাত হোসেন ঘুষ দূর্ণীতির সাথে জড়িয়ে পড়েছেন। লোহাগড়া উপজেলার কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান তার স্ত্রী নাজমা বেগম এর নামে লোহাগড়া মৌজার ৩৯৩৪ দাগের এক খন্ড জমি ক্রয় করেন। এরপর সহকারি কমিশনার আরাফাত হোসেন এর মাধ্যমে নাম পত্তন করেন। ওই জমিতে ঘর তুলতে গেলে বাঁধা দেন সহকারি কমিশনার আরাফাত হোসেন। তিনি ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমানের নিকট ৩০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। ঘুষ না দেয়ায় ঘর তৈরির সরঞ্জাম সহ যাবতীয় নির্মান সামগ্রী ভেঙ্গে নষ্ট করে পাশের খালে ফেলে দেন।

এছাড়া লোহাগড়া পৌর এলাকার রাজপুর গ্রামের মশিয়ার রহমানের বাড়ি ভেঙ্গে দেন। এদিকে এড়েন্দার রিপন মোল্যার স্বত্ব দখলীয় জমির নামজারির জন্য অতিরিক্ত টাকা না দেওয়ায় কেস খারিজ করে দিয়েছেন বলে এসি ল্যান্ড আরাফাতের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন রিপন মোল্যা । প্রশাসনের এ কর্মকর্তার খাম খেয়ালি কার্যক্রমে লোকজন চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। গুঞ্জণ আছে তার অন্যান্য কিছু দোষও আছে। কাশিপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের পিয়ন মেঘনা বেগমের সাথে তার (আরাফাত হোসেনের) গোপন সম্পার্ক আছে । তাই মেঘনা বেগমকে প্রায়ই তার অফিসে ঘুর ঘুর করতে দেখা যায়। গুঞ্জণ আছে যে কাজ কেউ করাতে পারে না, সে কাজ খুব সহজে করিয়ে আনেন মেঘনা বেগম। তাইতো অনেকেই মেঘনা বেগমের দ্বারস্থ হন। এ কারনে প্রায়ই ফাইল হাতে মেঘনা বেগমকে তার কার্যালয়ে দেখা যায়। অথচ গ্রামের সহজ সরল মানুষ গেলে নানা অজুহাতে তাদের ঘুরানো হয়। বিনা কারনে হয়রানি করা হয়। খুটে খুটে ভুল বের করা হয়। অবশ্য চাহিদা মত ঘুষ দিলে আর অসুবিধা হয় না।

এদিকে দিন দিন তার নারী কেলেংকারির নানা রসালো কথা ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন মহলে। মেঘনা বেগম’র মত অনেকেই তার আস্থাভাজন হয়ে উঠছেন। অথচ বৈধ কাগজপত্র থাকা সত্বেও বিপদে পড়ছেন নিরীহ গো-বেচারারা। এহেন পরিস্থিতিতে অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীরা চরম বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন। তারা না পারছেন কইতে ,না পারছেন সইতে। তার এসব দূর্ণীতি,অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতায় ক্ষতিগ্রস্থরা ইতোমধ্যে তার বিরূদ্ধে জেলা প্রশাসক ও খুলনা বিভাগীয় কমিশনার বরাবর একাধিক লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। ক্ষতিগ্রস্থ জনগন এসি ল্যান্ড আরাফাত হোসেনের বিচার চায় ও তার নোংরামি থেকে পরিত্রান চায় ।

উল্লেখ্য এর আগে বিভিন্ন অভিযোগ এনে তার শাস্তি ও প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন করে এলাকাবাসি।

 

নিউজ ডেস্ক / বিজয় টিভি