মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ খেতাব জিতলেন চট্টগ্রামের মেয়ে রাফাহ নানজিবা তোরসা

মুকুট এবার নতুন সুন্দরীর দখলে। মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ- খেতাবের অধিকারী এখন রাফাহ নানজিবা তোরসা। শুক্রবার রাতে সেরার মুকুট উঠেছে এই সুন্দরীর মাথায়। ডিসেম্বরে লন্ডনে বিশ্বসুন্দরীর মূল প্রতিযেগিতার মঞ্চে দেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন তিনি। তিনি অনন্য, কিন্তু সেকথা জানতো কেবল তার চারপাশের মানুষজন। এবার তাকে চিনছে পুরো দেশ। তিনি রাফাহ নানজিবা তোরসা, মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৯। মাথায় সেরার মুকুট ওঠার আগে থেকেই জীবনের নানা পর্যায়ে প্রতিভার দ্যুতি ছড়িয়েছেন চট্টগ্রামের এ মেয়ে।

মাথায় মুকুট ওঠার আগে কেমন ছিলেন তিনি? অবশ্যই সাধারণ তবে অনন্য।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল ডিপার্টমেন্টে দ্বিতীয় বর্ষে পড়ছেন রাফাহ নানজিবা তোরসা। নৃত্যে পটু, শিখছেন ছোটবেলা থেকেই। ২০০৯ সালে ‘বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর’ প্রতিযোগিতায় জাতীয় পর্যায়ে ফোক ডান্সে প্রথম হন তোরসা, পুরস্কার গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে।

বাংলাদেশ বেতারের ভোকাল আর্টিস্ট এবং উপস্থাপক রাফাহ নানজিবা তোরসা আবৃত্তি করেন নিয়মিত। যুক্ত আছেন চট্টগ্রামের নরেন আবৃত্তি একাডেমিতে।

Image may contain: 1 person, smiling, standing

উপস্থাপনার সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন তিনি। বিজয় টেলিভিশনের চট্টগ্রাম সংলাপ অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন, উপস্থাপনা করেছেন বিজয় টেলিভিশনের বর্ষপূর্তির আয়োজনও।

শুক্রবার রাতে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে নতুন এ সুন্দরীকে নির্বাচন করা হয়। এগারোজন সুন্দরীকে মেধা-মনন ও সৌন্দর্যে পেছনে ফেলে নিজেকে শ্রেষ্ঠ সুন্দরী হিসেবে নির্বাচিত হন রাফাহ নানজিবা তোরসা। আয়োজনের প্রথম রানার আপ ফাতিহা মায়াবী এবং দ্বিতীয় রানার আপ হয়েছেন জান্নাতুল ফেরদৌস মেঘলা।

এ বছরের ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’-এর যাত্রা শুরু হয় ৫ সেপ্টেম্বর। অডিশনের জন্য নিবন্ধন করেন ৩৭ হাজার ২৪৩ জন সুন্দরী। সেখান থেকে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ এবং পরীক্ষার মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত পর্বের জন্য নির্বাচন করা হয় ১২ জন প্রতিযোগী।

অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন দেবাশীষ বিশ্বাস ও শ্রাবণ্য তৌহিদা। বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী, চিত্রনায়ক ফেরদৌস। মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের আয়োজক অমিকন ইন্টারটেইনমেন্ট।

নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি