রাষ্ট্রভাষা দাবি দিবস স্মরণে ডাকটিকেট অবমুক্ত

৭৭

ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে জাতির জন্য অবিস্মরণীয় একটি গৌরবোজ্জ্বল দিন ১১ মার্চ। ১৯৪৮ সালের এই দিনে ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ দাবিতে তৎকালিন পূর্ববাংলায় সর্বাত্মক সাধারণ ধর্মঘট পালিত হয়। এটাই ছিল ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস তথা পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর এ দেশে প্রথম সফল ধর্মঘট। ১১ মার্চ প্রতিবাদের যে ভিত রচনা হয়েছিল তারই সূত্র ধরে এই সংগ্রামের পরিপূর্ণতা লাভ করে ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারিতে। দিবসটি উপলক্ষে ডাক অধিদপ্তর স্মারক ডাকটিকেট, উদ্বোধনী খাম ও ডাটা কার্ড প্রকাশ করেছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বৃহস্পতিবার ১১ মার্চ ঢাকায় তার দফতরে এ বিষয়ে ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকেট ও ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন। এছাড়া ৫ টাকা মূল্যমানের একটি ডাটাকার্ড উদ্বোধন করা হয়। মন্ত্রী এ সংক্রান্ত একটি সীলমোহর ব্যবহার করেন। তিনি দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে বিবৃতি দিয়েছেন।

মন্ত্রী বিবৃতিতে ভাষা আন্দোলনে এই দিবসটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন করাচিতে অনুষ্ঠিত হয়। পাকিস্তান গণপরিষদের এ অধিবেশন শুরু হওয়ার আগেই পূর্ব বাংলায় ( বাংলাদেশ) বাংলাকে অফিস-আদালতের ভাষা ও শিক্ষার মাধ্যম করার জন্য ছাত্র, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক কর্মীদের মধ্যে আন্দোলন শুরু হয়। এ আন্দোলনেরই প্রতিফলন ঘটে কুমিল্লা থেকে নির্বাচিত বাঙালি সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত কর্তৃক উত্থাপিত ভাষা বিষয়ক একটি প্রস্তাবের মধ্যে। প্রস্তাবটিতে তিনি বলেন, ‘উর্দু ও ইংরেজির সঙ্গে বাংলাকেও গণপরিষদের অন্যতম ভাষা হিসেবে ব্যবহারের অধিকার থাকতে হবে’।তিনি যুক্তি উপস্থাপন করেন, পাকিস্তানের পাঁচটি প্রদেশের ছয় কোটি ৯০ লাখ মানুষের মধ্যে চার কোটি ৪০ লাখ মানুষ বাংলা ভাষাভাষী। সুতরাং বিষয়টিকে প্রাদেশিকতার মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে বাংলাকে বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর ভাষা হিসেবে দেখা উচিত। তাই তিনি গণপরিষদে উর্দু ও ইংরেজীর পাশাপাশি বাংলা ভাষাকেও রাষ্ট্রভাষা হিসেবে অন্তর্ভূক্তির দাবি করেন বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী ১৯৪৮ সালের ১৩ মার্চ অমৃত বাজার পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, বাংলাকে রাষ্ট্রভাষার দাবিতে ১১ মার্চ ১৯৪৮ তারিখে পূর্ব বাংলা সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট, ঢাকা শহরে বিক্ষোভ এবং পিকেটিং করা হয়। এ দিন দেশজুড়ে ছাত্র-জনতা আন্দোলন, মিছিল ও বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। ১১ মার্চের ভোরে ছাত্ররা পিকেটিংয়ের জন্য বিভিন্ন হল থেকে বেরিয়ে পড়েন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হল, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ( বুয়েট) এবং মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা এ ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় ছিল। পিকেটিং চলাকালে ছাত্রদের ওপর লাঠিচার্জ করা হয় এবং বহু নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। ‘হরতালের সময় ২০০ জন আহত, ১৮ জন গুরুতর আহত এবং ৯০০ জন গ্রেপ্তার হন।’ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই দিবসের আন্দোলনে নেতৃত্ত্ব দেন। পুলিশ হামলা চালিয়ে বাংলা ভাষার দাবীর মিছিল থেকে শামসুল হক, ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ বেশ কয়েকজন ছাত্র ও রাজনৈতিক নেতাকে গ্রেফতার করে।

You might also like