লাথামের অর্ধেক রানেই অলআউট বাংলাদেশ

ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ক্রাইস্টচার্চের হাগলি ওভালে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ড গড়েছেন টম লাথাম, খেলেছেন ২৫২ রানের এক ইনিংস। অথচ পরের ইনিংসে কি না পুরো বাংলাদেশ দল মিলেও তার অর্ধেকের বেশি রান করতে পারলো না।

ট্রেন্ট বোল্ট, টিম সাউদি, কাইল জেমিসনের পেস তোপে বিধ্বস্ত বাংলাদেশ অলআউট হয়েছে লাথামের ঠিক অর্ধেক, ১২৬ রানে। নিউজিল্যান্ডের করা ৫২১ রানের চেয়ে ৩৯৫ রানে পিছিয়ে সফরকারীরা।

মাত্র ১ টেস্টের ব্যবধানে ক্রাইস্টচার্চেই মুদ্রার উল্টোপিঠ দেখতে হলো বাংলাদেশকে। নিউজিল্যান্ডের করা ৫২১ রানের জবাবে তাসের ঘরের মত ভেঙে পড়ে বাংলাদেশের টপ অর্ডার। দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে না পারায় ২৭ রানে ৫ ব্যাটারকে হারায় বাংলাদেশ। মূলত তখনই মেরুদণ্ড ভেঙে যায় সফরকারীদের।

আর ইনিংস বদলের সাথে সাথে যেন বদলে যায় উইকেটের চরিত্রও। শুরুতে ৭ রানে ওপেনার শাদমানের বিদায়ের পর শততম ক্রিকেটার হিসেবে অভিষিক্ত মোহাম্মদ নাঈম কাছে দুর্বোধ্য ঠেকেছে টিম সাউদি। অভিষেকেই তাই শূন্য করার তিক্ত অভিজ্ঞতা হলো এই বাঁহাতি ব্যাটারের।

অন্যদিকে ট্রেন্ট বোল্টের লেট সুইংয়ের জবাব ছিল না নাজমুল শান্তের কাছে। সাউদির ফুলার লেংথের ডেলিভারি শূন্য রানেই থামিয়ে দেয় বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুলকে। ১১ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে প্রতিরোধের দেয়ালের প্রায় পুরোটাই ভেঙে পড়ে সফরকারীদের।

ক্রাইস্টচার্চের কন্ডিশন ও উইকেট যে মিরপুরের স্লো-লো কন্ডিশনের একদমই বিপরীত, তা যেন স্পষ্টভাবে ফুটে উঠেছে ব্যাটারদের সংগ্রামে। নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি লিটন দাস। স্রোতের বিপরীতে প্রতিরোধের কিছুটা চেষ্টা ছিল ইয়াসির আলী রাব্বি ও নুরুল হাসান সোহানের জুটিতে।

ইয়াসির আলী রাব্বি সন্দেহাতীতভাবে ট্রেন্ট বোল্টকে সামলেছেন সবচেয়ে দক্ষতার সাথে। টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম হাফ সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ৫৫ রানে কাইল জেমিসনের প্রথম শিকারে পরিণত হন তিনি। তার আগেই অবশ্য টিম সাইদির অ্যাঙ্গলিং ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউ হন নুরুল হাসান সোহান ব্যক্তিগত ৪১ রানে।

ইয়াসির-সোহানের ৬০ রানের জুটিতেই যেন আব্রু কিছুটা হলেও রক্ষা পায় টাইগারদের। বাকিদের যাওয়া আসার মিছিলে ১২৬ রানে থামে মুমিনুল হকের দল। মাত্র ৪১.২ ওভার স্থায়ী হয় বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস।

 

You might also like