সাবেক শিবির নেতা টিপু সুলতানকে মৃত্যুদন্ড

মুক্তিযুদ্ধের সময় সংগঠিত মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় সাবেক শিবির নেতা মো. আব্দুস সাত্তার ওরফে টিপু রাজাকার ওরফে টিপু সুলতানকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

আজ (বুধবার) ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল এ রায় ঘোষণা করেন।

ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউটর ছিলেন মোখলেসুর রহমান বাদল। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী গাজী এম এইচ তামিম।

রায় ঘোষণার পর প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল বলেন, আনীত অভিযোগ প্রসিকিউশন প্রমাণ করতে পেরেছে। এই রায়ে প্রসিকিউশন সন্তুষ্ট। বিজয়ের এই মাসে এ রায় মুক্তিযুদ্ধের সময় সংগঠিত মানবতাবিরোধী অপরাধে ভিকটিমদের জন্য একটি স্বস্তি। এ রায় ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় আরো একটি মাইলফলক।

আসামিপক্ষে গাজী এম এইচ তামিম বলেন, এই রায়ে আসামি সংক্ষুব্ধ। তিনি সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

ট্রাইব্যুনাল মঙ্গলবার রায়ের জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন। এর আগে ১৭ অক্টোবর এ মামলায় শুনানি শেষে সিএভি (রায়ের জন্য অপেক্ষমান) রাখা হয়।

গত বছরের ২৭ মার্চ এ আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করা হয়। এরপর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয়। পরে একই বছরের ৮ আগস্ট তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

মামলায় বলা হয়, টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রাজশাহীর বোয়ালীয়ায় দশজনকে হত্যা, দুইজনকে দীর্ঘদিন আটকে রেখে নির্যাতন, ১২ থেকে ১৩টি বাড়ির মালামাল লুট করে আগুন দেয়ার অপরাধ। এসব অপরাধে এ আসামির বিরুদ্ধে সুুুুনির্দিষ্ট দুইটি অভিযোগ আনা হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধের প্রথম দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েও গণহত্যা চালিয়েছিল পাকিস্তানি আর্মি ও স্থানীয় রাজাকাররা। স্থানীয় সেই সব রাজাকারদের মধ্যে টিপু সুলতানই বেঁচে আছেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় আসামি জামায়াতে ইসলামী ছাত্র সংগঠন ‘ইসলামী ছাত্র সংঘ’ পরবর্তীতে ‘ইসলামী ছাত্র শিবির’র সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি