হয়রানি ও ভোগান্তি কমাতে ভূমি সেবা ডিজিটালাইজেশন করা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

ভূমিসেবা ডিজিটালাইজ করায় আর ভোগান্তির শিকার হবে না মানুষ। ভূমির যথাযথ ব্যবহার ও রক্ষায় আধুনিক ব্যবস্থাপনার ওপর জোর দিচ্ছে সরকার।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকালে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভূমি ভবন, উপজেলা ও ইউনিয়নের ভূমি অফিস ভবন, অনলাইন ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধ কার্যক্রম এবং ভূমি ডাটা ব্যাংকের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, সেবা আধুনিকায়নের ফলে এখন আর মানুষ ভোগান্তির শিকার হবে না। হাতের মুঠোয় ভূমি সেবা পাবেন সবাই।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, কৃষি, অকৃষি, জলমহল, বালুমহল, চা বাগানসহ সকল প্রকার ভূমির ডাটা বেইজ তৈরি করা হচ্ছে। ফলে এখন থেকে ভূমি অধিগ্রহনের জটিলতা দূর হওয়ার পাশাপাশি ভূমির সুষম ব্যবহার নিশ্চিত হবে।

দেশব্যাপী ১ হাজার ৪৯৮টি ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ করা হচ্ছে বলেও জানান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, এরিমধ্যে ৮শ’ অফিসের কাজ শেষ হয়েছে। বাকিগুলো চলমান।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, বিএনপি জামাত মানুষের জন্য কাজ করে না, অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসার কারণে দেশের জন্য দায়িত্ববোধও তাদের নেই।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত যে অগ্নিসন্ত্রাস করেছিল, সে সময় অনেকগুলো ভূমি অফিস জ্বালিয়ে দেয়। শুধু তাই নয়, চলন্ত বাসেও আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারে। তখন ঘোষণা দিয়েছিলাম, যারা আগুন দিয়েছিল, তাদের যেন মালিকানা না থাকে। এটা দেয়ার পর অবশ্য ভূমি অফিস পোড়ানো বন্ধ হয়। মানুষের প্রতি এদের কোনো দায়িত্ববোধ নেই, দেশের জন্যই নেই। অবৈধ দখলদার সরকারের দেশ ও মানুষের প্রতি কোনো দায়িত্ববোধ থাকে না। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের লোভ ছিল ক্ষমতার প্রতি।

তিনি বলেন, রূপকল্প ২০২১ গ্রহণের মাধ্যমে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনাই নিয়েছিলাম, পরে এই পরিকল্পনা ২০৪১ সাল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। মানুষ যেন হয়রানি, ভোগান্তিতে না পড়েন, হাতের মুঠোয় ভূমিসেবা নিশ্চিতে ডিজিটাল ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

You might also like