১লা জানুয়ারি জাতীয় পাঠ্যপুস্তক উৎসব

১১৩

আগামীকাল ১লা জানুয়ারি দেশব্যাপী ২০২০ শিক্ষাবর্ষের জন্য জাতীয় পাঠ্যপুস্তক উৎসব পালিত হবে। আজ (মঙ্গলবার) গণভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়ে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জেএসসি-জেডিসির ফলাফল এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীর (পিইসি) ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

প্রতি বছরের ন্যায় জানুয়ারির প্রথম দিনেই দেশের ৪ কোটি ২০ লাখেরও বেশি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের মাঝে ১ জানুয়ারি ৩,৫৩,১৪৪,৫৫৪টি বই বিতরণ করা হবে।

নতুন বইয়ের আনন্দে মাতোয়ারা হওয়ার উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে বই উৎসবে অংশ নিতে অধীর অপেক্ষায় রয়েছে শিক্ষার্থীরা ।

২০১০ সাল থেকে বর্তমান সরকার বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করছে। প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও এবতেদায়ী স্তরের জন্য যথাযথ মান সংরক্ষণের মাধ্যমে এই বইগুলো মুদ্রণ করেছে সরকার।

২০২০ শিক্ষাবর্ষের জন্য প্রাক-প্রাথমিক থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ৪ কোটি ২৬ লাখ ১৯ হাজার ৮৬৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য ৩৫ কোটি ৩১ লাখ ৪৪ হাজার ৫৫৪টি বই ছাপানো হয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য ১০ কোটি ৫৪ লাখ ২ হাজার ৩৭৫ এবং মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য ২৪ কোটি ৭৭ লাখ ৪২ হাজার ১৭৯টি বই বিনা মূল্যে বিতরণ করা হবে।

এ বছর প্রাথমিক স্তরের ২ কোটি ২ লাখ ৮৪ হাজার ৫১ শিক্ষার্থীর মাঝে ৯ কোটি ৮৫ লাখ ৫ হাজার ৪৮০টি পাঠ্যপুস্তক এবং প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির ৩২ লাখ ৭১ হাজার ৫৭৮ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ৩৩ লাখ ৩৭ হাজার ৬৩৮ টি আমার বই ও ৩৩ লাখ ৩৭ হাজার ৬৩৮ টি অনুশীলন খাতা বিতরণ করা হবে।

এছাড়া ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মাঝে ২৮,৭৩৫ টি আমার বই ও ২৮,৭৩৫ টি অনুশীলন খাতা এবং ১ম শ্রেণির ৭৪,৮৪৭ টি, ২য় শ্রেণির ৭৩,৬৩৫ টি, ৩য় শ্রেণির ২৪,১৫১ টি পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করা হবে।

আপদকালীন জরুরী প্রয়োজনে উপজেলা-থানা পর্যায়ে বাফার স্টকে ২ শতাংশ বই বরাদ্দ রাখা আছে। মাধ্যমিক স্তরে ও মাদরাসার দাখিল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ছাপানো হয়েছে ২৪ কোটি ৭৭ লাখ ৪২ হাজার ১৭৯টি বই। ইবতেদায়ি (মাদরাসার প্রাথমিক) স্তরের জন্য ছাপানো হয়েছে ২ কোটি ৩২ লাখ ৪৩ হাজার ৩৫টি বই।

এসএসসি ভোকেশনালের জন্য ১৬ লাখ ৩ হাজার ৪১১টি বই। এইচএসসি বিএম ভোকেশনালের জন্য ২৭ লাখ ৬ হাজার ২৮টি বই এবং দাখিল ভোকেশনালের জন্য ছাপানো হয়েছে এক লাখ ৬৭ হাজার ৯৬৫টি বই।

প্রতিবার আজিমপুর গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে মাধ্যমিক পর্যায়ের বই উৎসব অনুষ্ঠিত হলেও এবার মাধ্যমিক পর্যায়ের বই উৎসব হবে সাভারের অধরচন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে। গত বছরের মতো এ বছরও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিতে পৃথকভাবে উৎসব পালন করা হবে দেশের প্রতিটি জেলায়।

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/ বিজয় টিভি

You might also like