আগামী ১৫ জুন থেকে ৩০শে জুনের মধ্যেই চালু হতে পারে ভারতের বেশ কিছু সিনেমা হল

৮৬

ভারতে এখন চলছে তৃতীয় দফা লকডাউন। বন্ধ রয়েছে সব বিনোদন কেন্দ্র। খোলা হয়নি প্রেক্ষাগৃহ। চলমান এই লকডাউনে এরমধ্যেই ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে বলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি।

লকডাউনে বন্ধ রয়েছে যেমন সিনেমার শুটিং, ঠিক তেমনি বন্ধ রয়েছে ভারতের প্রেক্ষাগৃহ গুলোও। ফলে মুক্তি আটকে রয়েছে বেশ অনেকগুলো সিনেমারও। তবে এবার হয়ত স্বস্তির দিন দেখতে যাচ্ছে প্রেক্ষাগৃহ মালিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতারা।

ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১৫ জুন থেকে ৩০শে জুনের মধ্যেই চালু হতে পারে ভারতের বেশ কিছু সিনেমা হল।  তবে সেটি অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে। সিনেমার টিকেট অনলাইনে বিক্রি হতে পারে বলে জানা গেছে।

এদিকে দিনের পর দিন সিনেমা হল বন্ধ থাকায় মুক্তি প্রতীক্ষিত ছবির প্রযোজকরা ঝুঁকছেন অনলাইন প্লাটফর্মের দিকে। এরই মধ্যে দুইটি সিনেমা অনলাইনে মুক্তি দেয়ার দিনক্ষণ ও প্রকাশ হয়ে গিয়েছে। এ নিয়ে হল মালিক সমিতি ও প্রযোজক সমিতির মধ্যে দ্বন্দ্বও শুরু হয়েছে।

করোনার গ্রাস থেকে মুক্তি পায়নি হলিউড ইন্ডাস্ট্রিও। সেখানেও বন্ধ শুটিং, ছবি মুক্তি ও এখন বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তবে প্রোডাকশনের কাজ আবার শুরু করার চেষ্টা করছে হলিউড। তার জন্য চলছে পরিকল্পনা। পরিকল্পনাও বদলাচ্ছে প্রতিদিন এবং প্রতি সপ্তাহে।

শুধু যে মাস্ক, স্যানিটাইজার, গ্লাভসের খরচ বাড়বে তাই নয়, অভিনয় শিল্পী এবং কলাকুশলীদের পেছনেও অনেক খরচ হবে। স্পেশাল ইফেক্টের জন্য খরচ করতে হবে প্রচুর অর্থ। এসব কাজে অনেক অর্থও প্রয়োজন হবে। কিন্তু এই সবকিছু ইন্ডাস্ট্রি কিভাবে সামাল দেবে তার উত্তর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা।

নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি

You might also like
%d bloggers like this: