কক্সবাজার সমূদ্র সৈকতে জীব বৈচিত্র্যে ফিরে এসেছে প্রাণ চাঞ্চলতা

১৫৩

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে গত ১৯ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে সমুদ্র সৈকতসহ কক্সবাজারের পর্যটন কেন্দ্রগুলো।

জনশূন্য কক্সবাজার সমূদ্র সৈকতে জীব বৈচিত্রে ফিরে এসেছে প্রাণ চাঞ্চলতা। করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে সৈকতে মানুষের বিচরণ নিষিদ্ধ করার পরই সৈকত ও সমূদ্র তার নিজস্ব রূপ বৈচিত্রে ফিরতে শুরু করে। এদিকে, প্রাকৃতিক এ বৈচিত্র রক্ষায় নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে প্রশাসন।

সৈকতের বালিয়াড়িতে সাগর লতার বিস্তারে সবুজের সমাহার। ফিরে এসেছে ঝাঁকে ঝাঁকে লাল কাঁকড়া। দেখা মিলছে সামুদ্রিক কাছিমের। ঝাঁকে ঝাঁকে গাঙ্গচিলের কোলাহলে সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি পেয়েছে সৈকতের।

এদিকে, সমুদ্র সৈকতে জীব বৈচিত্র রক্ষায় কাজ শুরু করেছে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। লাল কাকড়া, কাছিম, ডলফিন, সমুদ্র লতাসহ জীববৈচিত্র সংরক্ষণে জন্য ইতিমধ্যে সমুদ্র সৈকতের ৫টি এলাকা চিহ্নীত করে ঘিরা দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, এ প্রাকৃতিক জীব বৈচিত্র রক্ষায় পর্যটকদের জন্য আলাদা জোন করার উপর গুরুত্বারোপ করলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের এ কর্মকর্তা।

এছাড়া, পর্যটন শিল্পের স্বার্থে সৈকতের একটি বড় এলাকাকে এক্সক্লুসিভ জোন হিসেবে ঘোষণা করার কথা জানান জেলা প্রশাসক।

কোলাহল ও দুষণমুক্ত পরিবেশ ফিরিয়ে আনা গেলে সমূদ্র সৈকত তার নিজস্ব রূপ বৈচিত্র্য ফিরে পাবে। নানান জলজ প্রাণী আপন ঠিকানায় ফিরে কোলাহলে মূখরিত হবে সাগরপাড়। ফলে বহুমাত্রিক সম্ভাবনায় বিকশিত হবে পর্যটন শিল্প, এমনটাই মনে করছেন সচেতন মহল।

নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি

You might also like