কাল থেকে শুরু অগ্নিঝরা মার্চ

বাঙালি জাতির স্বপ্নসাধ যৌক্তিক পরিণতির মাস অগ্নিঝরা মার্চ কাল থেকে শুরু হচ্ছে। বাংলাদেশের সুদীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসে শ্রেষ্ঠতম ঘটনা হচ্ছে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ। সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামের এই ঐতিহাসিক ঘটনার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির কয়েক হাজার বছরের সামাজিক-রাজনৈতিক স্বপ্নসাধ পূরণ হয় এ মাসে।

একাত্তরের এ মাসেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষনা করেন। এর আগে বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণে ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’ স্বাধীনতার অমর কাব্যের একটি পঙতি বাঙালি জাতিকে ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তায় ঐক্যবদ্ধ করে ।

এই মার্চেই পাকিস্তানকে বাঙালি বিদায় সম্ভাষণ জানায়। পাকিস্তানি সৈন্যরা ২৫ মার্চ রাতে অতর্কিতে বাঙালিদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। এইদিনে বাঙালি জাতির জীবনে এক বিভীষিকাময় রাত নেমে আসে।

মধ্য রাতে বর্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাদের পূর্ব পরিকল্পিত অপারেশন সার্চ লাইটের নীলনকশা অনুযায়ী আন্দোলনরত বাঙালিদের কণ্ঠ চিরতরে স্তব্ধ করে দেয়ার ঘৃণ্য লক্ষ্যে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

এই মার্চ মাসেই বাংলাদেশের ও বাঙ্গালি জাতির নির্মাতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনও। আগামী ১৭ মার্চ তাঁর জন্মশতবার্ষিকী । এদিন থেকে আগামীবছরের ১৭ মার্চ পর্যন্ত সময়কে মুজিব বর্ষ হিসাবে ঘোষনা করা হয়েছে ।

এখন চলছে ক্ষণগননা। মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ব্যাপক কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যেই দেশ-বিদেশের তিন শতাধিক কর্মসূচি মনোনীত করা হয়েছে। আগামী ১৭ মার্চ কর্মসূচীর উদ্বোধন করা হবে। অনুষ্ঠানে দেশী বিদেশী বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত থাকবেন।

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি

You might also like