গাইবান্ধায় যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা, স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী আনোয়ারা বেগমকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় স্বামী আতোয়ার রহমানকে (৪৫) মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ফারুক আহম্মেদ প্রিন্সি বলেন, আসামি আতোয়ার গ্রেফতারের পর আদালতে ১৬৪ ধারায় হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। এরপর দীর্ঘ শুনানি ও সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক এ রায় দেন।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক এই রায় দেন। রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আদালতে উপস্থিত ছিলেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আতোয়ার রহমান গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শতিরজান চর এলাকার বাসিন্দা।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০০৫ সালে আতোয়ার রহমান পার্শ্ববর্তী গ্রামের আনোয়ারা বেগমকে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে ১৩ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে যৌতুকসহ বিভিন্ন পারিবারিক বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য চলে আসছিল।

২০১৯ সালের ৬ জানুয়ারি সকালে স্ত্রীকে যৌতুকের জন্য চাপ দেন আতোয়ার। এতে স্ত্রী অসম্মতি জানালে সেদিন রাতে আতোয়ার স্ত্রী আনোয়ারাকে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। পরে আহত আনোয়ারাকে বাড়ির উঠানে নিয়ে তারই ওড়না গলায় পেঁচিয়ে টানাহেঁচড়া করতে থাকেন। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান আনোয়ারা।

এ ঘটনায় পরদিন নিহতের ভাই মহির উদ্দিন বাদি হয়ে আতোয়ারকে একমাত্র আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে এক সপ্তাহ পর পুলিশ আতোয়ারকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়।

You might also like