গ্লাসগো জলবায়ু চুক্তি অনুসরণ করার এখনই সময় : প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লেখা ‘গ্লাসগো জলবায়ু চুক্তি অনুসরণ করার এখনই সময়’ শিরোনাম একটি নিবন্ধ রোববার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া, আর্লিংটন কাউন্টিতে অবস্থিত একটি আমেরিকান, জার্মান-মালিকানাধীন রাজনৈতিক সাংবাদিকতা পত্রিকা কোম্পানি ‘পলিটিকোতে’ প্রকাশিত হয়েছিল।

নিবন্ধটির সম্পূর্ণ পাঠ্য নিচে তুলে ধরা হলো :
মানব ইতিহাসের অন্য কোনো সময়ে জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার চেয়ে জরুরি কোনো কারণ প্রমাণিত হয়নি; এই গ্রহে আমরা যাকে বাড়ি বলে ডাকি এবং প্রতিটি প্রজাতির জন্য আমরা এটি শেয়ার করে নিয়েছি, সেখানে আমাদেরকে এর চেয়ে আর কোন বেশি ঝুঁকির মধ্যে পড়তে হয়নি।

যাই হোক, উদ্দীপনামূলক বক্তৃতা এবং অনুপ্রেরণাদায়ক ভাষা এখন শুধু শূন্য অনুভূতি। বিজ্ঞানীরা দীর্ঘকাল ধরে জোরদার পদক্ষেপের আহ্বান জানিয়েও খালি অলঙ্কার এবং সূক্ষ্ম কাতানো ছাড়া আর কিছুই পাননি।

এক শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার মুখোমুখি বাংলাদেশের সিলেটের মানুষের কাছে শব্দগুলো পর্যাপ্ত নয়। শব্দগুলো আকস্মিক বন্যাকে তাদের বাড়িঘর নিয়ে যাওয়া, তাদের জীবিকা ধ্বংস করা, তাদের প্রিয়জনকে হত্যা করা থেকে বিরত রাখতে পারেনি এবং গত মাসে পাকিস্তানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ মিলিয়নের জনগণের জন্য সমর্থন বা ছোট সাহায্য প্যাকেজগুলোর টুইটগুলো যথেষ্ট ছিলনা।

এর পরিবর্তে, আমি আজকে যা আহ্বান করছি তা হল পদক্ষেপ- গত বছর গ্লাসগোতে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনে কপ-২৬-এ দেয়া প্রতিশ্রুতি পূরণের জন্য পদক্ষেপ, একটি উষ্ণ গ্রহের কঠোরতম বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হয় আমার মতো দেশগুলোকে সহায়তা করার জন্য এবং যখন বিশ্ব নেতারা আবারও একত্রিত হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এইবার শারম এল-শেখ এ আমি আমার সম্মানিত সহকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি তারা যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা রক্ষার উপায় খুঁজে বের করার জন্য। অন্ততপক্ষে ২০২৫ সালের মধ্যে অভিযোজনের পাশাপাশি অর্থের ব্যবস্থা দ্বিগুণ করার জন্য।

উন্নত দেশগুলোর কাছ থেকে এই প্রতিশ্রুত আর্থিক সহায়তা প্রাপ্তিকে একটি নৈতিক বাধ্যবাধকতা হিসাবে বিবেচনা করা উচিত- এবং এটি আমার মতো জলবায়ুর ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য অত্যাবশ্যক। এটি ভবিষ্যতের কোনো তারিখের জন্য ছেড়ে দেওয়া যাবে না। যদিও জলবায়ু পরিবর্তনের বিস্তৃত পরিণতির বিরুদ্ধে আমরা লড়াই করছি এবং এই মুহুর্তে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হয়, তাহলে অবিলম্বে সহায়তা দেয়া দরকার।

বাংলাদেশ বর্তমানে বৈশ্বিক কার্বন নির্গমনে ০.৫৬% অবদান রাখে এবং তবুও, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে আমাদের দেশের ক্ষতির অনুপাত অপ্রতিরোধ্য।