ঘোড়াশাল-পলাশ কারখানায় বছরে ১০ লাখ মেট্রিক টন সার উৎপাদন

এশিয়ার সর্ববৃহৎ ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া ফার্টিলাইজার প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তেজগাঁওয়ে বিসিকের বহুতল ভবন নির্মাণ, মাদারীপুর বিসিক শিল্প নগরী সম্প্রসারণ, বিটাকের কার্যক্রম শক্তিশালী করার লক্ষে টেস্টিং সুবিধাসহ টুল ইনস্টিটিউট স্থাপন এবং বিএসইসির এলইডি লাইট (সিকেডি) অ্যাসেমব্লিং প্লান্ট স্থাপন শীর্ষক চারটি প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) দুপুরে গণভবন থেকে নরসিংদীর ঘোড়াশাল-পলাশ ফার্টিলাইজার প্রকল্প এলাকায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এসব কার্যক্রমের সূচনা করেন তিনি। নরসিংদী থেকে সভাপতিত্ব করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি, স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ার আশরাফ খান, শিবপুরের সাংসদ জহিরুল হক ভূঁইয়া মোহন, বিসিআইসির চেয়ারম্যান শাহ মো. ইমদাদুল হক, প্রজেক্ট ডিরেক্টর রাজিউর রহমান মল্লিক, জেলা প্রশাসন-পুলিশ প্রশাসনসহ প্রকল্পে নিয়োজিত কর্মকর্তা ও সুধিজনেরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের অক্টোবরে কাজ শুরু হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘদিন পর আনুষ্ঠানিক ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হলো। ইতোমধ্যেই এশিয়ার সর্ববৃহৎ এই সার কারখানা প্রকল্পের ৭০ ভাগের বেশি কাজ সম্পন্ন হয়েছে ।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, ১০ হাজার ৪৬০.৯১ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি চালু হলে দৈনিক ২ হাজার ৮শ মেট্রিক টন ও বছরে ১০ লাখ মেট্রিক টন সার উৎপাদন সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক।

You might also like
%d bloggers like this: