চট্টগ্রামের পাঁচলাইশে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

৮৪

চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ কাতালগন্জ ডেকোরেশন গলির বস্তিতে লাগা আগুনে স্বজনদের আহাজারিতে চারিদিকের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠেছে। পবিত্র জুম্মার দিন সকাল দশটা ৩৪ মিনিটে ভয়াবহ এ আগুন লাগে।

একদিকে পানির সংকট অন্যদিকে স্বজনদের আহাজারিতে আমেজ নেই পবিত্র জুম্মা মোবারকের। সকলের একমাত্র লক্ষ্য আগুনের দিকে। প্রায় একঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও নিয়ন্ত্রণে নেই স্বজনদের আহাজারি।

স্থানীয় একজন বাসিন্দা কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আমার দুইটি মেয়েকে পাওয়া যাচ্ছে না। আগুন লাগার পর থেকে তাদের দেখা যাচ্ছেনা। আমি গাড়ি থেকে নেমে এখনো মেয়েদের দেখিনি।

চমেক হাসপাতাল সুত্র জানিয়েছে,এখন পর্যন্ত আগুনে হতাহত কাউকে হাসপাতালে আনা হয়নি।

পর্যাপ্ত পরিমান পানির যোগান না থাকায় নগরীর পাঁচলাইশ কাতালগন্জ ডেকোরেশন গলির বস্তিতে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে ফায়ার সার্ভিস সদস্যদেরকে।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে লাগা আগুন প্রায় একঘন্টা চেষ্টার পর নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে ফায়ার সার্ভিস। কিন্তু নিয়ন্ত্রণে আনার আগেই আনুমানিক ৩শ’ পরিবারের মধ্যে প্রায় অর্ধেক ঘর পুড়ে গেছে।

দুপুরে ফায়ার সার্ভিসের ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আব্দুল মান্নান আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আগুনে কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি তিনি। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের নগরীর বিভিন্ন স্টেশনের আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ৫ ইউনিটের ১৫ টি গাড়ি ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

কীভাবে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। এছাড়া আগুনে হতাহতের কোনো খবরও পাওয়া যায়নি।

চট্টগ্রাম জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সজীব কুমার চক্রবর্তী জানান, এখন পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষয়তির পরিমাণ ও পরিবারের সংখ্যা নির্ধারণ করা যায়নি। এগুলো সঠিকভাবে পাওয়া গেলে তাদের আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও পূনবাসনের ব্যবস্থা করা হবে।

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি