চট্টগ্রামে গৃহবধূ রহিমা হত্যায় মামলা

১৪৮

শ্বশুর বাড়ি থেকে চট্টগ্রাম আদালতের আইনজীবী এহতেশামুল পারভেজ সিদ্দিকী জুয়েলের স্ত্রী বিবি রহিমা (২৮) হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার চান্দগাঁও থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন নিহতের মা বেদুরা বেগম। বিষয়টি নিশ্চত করে চান্দগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) আবুল বশর বলেন, নিহতের মা বেদুরা বেগম অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। এখনও হত্যার কোনো রহস্য উদঘাটন হয়নি জানিয়ে  আবুল বশর বলেন, পুলিশের বিভিন্ন সংস্থা এ হত্যার রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে।

গতকাল নিজ বাড়ি থেকে চট্টগ্রাম আদালতের আইনজীবী এহতেশামুল পারভেজ সিদ্দিকী জুয়েলের স্ত্রী বিবি রহিমার হাত বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। বিবি রহিমা চারমাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। ঘটনার সময় রহিমার সঙ্গে তার ২ বছর ৯ মাস বয়সী শিশু হৃদি ছিল। মাকে হত্যার পুরো ঘটনার একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী মেয়ে হৃদি।

ওসি আবুল বশর জানিয়েছিলেন, বিবি রহিমাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তার মরদেহ উদ্ধারের সময় তার হাত পিছন থেকে বাঁধা ছিল। গলায় ও শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন ছিল। যে বাড়িতে খুন হন বিবি রহিমা সে বাড়িতে আরিফ ও ইয়াছিন নামে দুইজন ব্যাচেলর ভাড়াটিয়া থাকতেন। তারা পেশায় রংমিস্ত্রি। হত্যাকান্ডের পর থেকে তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে সন্ধ্যায় তারা বাসায় আসেন। পুলিশ তাদের দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চান্দগাঁও থানায় নিয়ে যায়। আরিফ ও ইয়াছিন এখন পুলিশ হেফাজতে আছেন।

এদিকে নিজ বাড়ি থেকে চট্টগ্রাম আদালতের আইনজীবী এহতেশামুল পারভেজ সিদ্দিকী জুয়েলের স্ত্রী বিবি রহিমার (২৮) মরদেহ উদ্ধারের পর পারিবারিক দ্বন্দ্ব সম্পত্তি ও ব্যক্তিগত বিরোধ এ তিন বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মিজানুর রহমান এ তথ্য জানান।

মিজানুর রহমান বলেন, হত্যাকান্ডের পর পুলিশের ইউনিট ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ হত্যার তদন্ত শুরু হয়েছে। তিনটি বিষয়কে সামনে রেখে আমরা কাজ শুরু করেছি। তাদের সঙ্গে কারও পারিবারিক দ্বন্দ্ব, সম্পত্তি নিয়ে দ্বন্দ্ব ও ব্যক্তিগত বিরোধ ছিল ।

 

নিউজ ডেস্ক / বিজয় টিভি

You might also like