দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৯

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার সয়না রঘুনাথপুর ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ডের রঘুনাপুর গ্রামে মেম্বার প্রার্থী শংকর দাস (তালা মার্কা) ও আশিষ মজুমদারের (মোরগ মার্কা) সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।

শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঐ দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে উভয়পক্ষের ৯ জন আহত হয়েছেন। তারা হলেন- তালা মার্কার প্রার্থী শংকর দাস ও তার কর্মী মহিবুল্লাহ শেখ (২০), তানিয়া বেগম (৩০), ফাইজুল হক শিমুল (২৪), মোরগ মার্কার প্রার্থী আশিষ মজুমদারের কর্মী আলী শেখ (৩৭), হেলাল খান (৩২), দলু মোল্লা (২৫), কালাম মাঝি (২৮) ও মনির হাওলাদার (২৮)।

সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে। আটকরা হলেন- আশিষ কুমার মজুমদারের কর্মী প্রভাষ মজুমদার (৪৩), দুলাল শেখ (৩০), তানভীর হাওলাদার (১৯), সোহেল শেখ (২৫) ও শংকর দাসের কর্মী আ. জলিল মোল্লা (৫২)।

মেম্বার প্রার্থী শংকর দাস বলেন, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আশিষ মজুমদার নির্বাচনী প্রচারণার শুরু থেকে আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকিসহ প্রচারণায় বাঁধা দিয়ে আসছে। এ বিষয়ে আমি থানাসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে একাধিকবার লিখিতভাবে জানিয়েছি। গত বুধবার (২৪ নভেম্বর) রাতেও একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠানে আমার ওপর হামলা চালানো হয়। এরই ধারাবাহিকতায় আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রচারণায় বের হলে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আশিষ কুমার মজুমদারের নেতৃত্বে আমাদের ওপর হামলা চালানো হয়।

অভিযোগ অস্বীকার করে মোরগ মার্কার প্রার্থী আশিষ মজুমদার বলেন, ঘটনার সময় আমি কাউখালী উপজেলা সদরে ছিলাম। মেম্বার প্রার্থী শংকর দাসের কর্মী তানিয়া বেগম আমার এক কর্মীকে অকারণে জুতাপেটা করে। এ নিয়ে সংঘর্ষ বাঁধে।

কাউখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বনি আমিন দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে।

You might also like