নার্সিং কলেজের প্রশ্নপত্র ফাঁস : কলেজের সাবেক অধ্যক্ষসহ গ্রেফতার-৬

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত নার্সিং কলেজ গুলোর বিএসসি ইন নার্সিং (পোস্ট বেসিক) পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় একটি নার্সিং কলেজের সাবেক অধ্যক্ষসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, এ চক্রের মূলহোতা প্রশিক্ষক ও শিক্ষক ফরিদা খাতুন (৫১), প্রশিক্ষক মোছা. মনোয়ারা খাতুন (৫২), প্রশিক্ষক ও শিক্ষক মোসা. নার্গিস পারভীন (৪৭), অধ্যক্ষ মোছা. কোহিনুর বেগম (৬৫) এবং তাদের সহযোগি ও নার্সিং কলেজের স্টাফ মো. ইসমাইল হোসেন (৩৮) ও মো. আরিফুল ইসলামকে (৩৭)।

এসময় তাদের নিকট থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁস করা কপি ও নয়টি মোবাইল উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে তথ্য দিয়েছে।

আজ সোমবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এসব তথ্য জানান।

তিনি জানান, রোববার দিবাগত রাতে র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-১০ রাজধানীর মহাখালী, ধানমন্ডি ও আজিমপুর এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে।

র‌্যাব বলছে, এ চক্রের সদস্যরা গত পাঁচ বছর ধরে নার্সিং পরীক্ষাসহ একাধিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত । চক্রের মূলহোতা কোহিনুর বেগম ২০০৮ সাল থেকে ঢাকার একটি সরকারি নার্সিং কলেজে নার্সিং প্রশিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। পরবর্তীতে সে ২০১৬ সালে অবসরে যাওয়ার পর একটি বেসরকারি নার্সিং কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে যোগ দেন। গ্রেফতাররা বিভিন্ন পরীক্ষার প্রশ্নপত্র প্রণয়ন কমিটি, মডারেটর ও ডিন থেকে নির্বাচিত প্রশ্নপত্র প্রিন্টিং ও প্যাকিংয়ে নিযুক্ত গোপন টিমের সদস্য ছিলেন। এ সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্যরা প্রশ্নফাঁস করে কৌশলে বিভিন্ন মানুষের নিকট থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।