নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর চালের ড্রাম থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার

যশোরে নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর প্রতিবেশীর বাড়ির চালের ড্রাম থেকে সানজিদা নামে চার বছরের এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এদিকে সানজিদাকে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকায় আঞ্জুয়ারা বেগম নামে এক নারীকে আটক করা হয়েছে।

শনিবার দিবাগত রাতে মরদেহটি উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

সানজিদা যশোর সদর উপজেলার পতেঙ্গালী গ্রামের সোহেল হোসেনের মেয়ে।

পরিবার ও প্রতিবেশীরা জানান, শনিবার দুপুর ১২টার দিকে সানজিদাকে বাড়ির পাশের দোকানে নিয়ে খাবার কিনে দেন সোহেল হোসেন। এরপর বাড়িতে দিয়ে যান। তারপর থেকেই নিখোঁজ ছিল সানজিদা। পরিবারের সদস্যরাসহ প্রতিবেশীরা সারাদিন তাকে বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করে। এমনকি পুকুরে জাল ফেলেও খোঁজ করা হয় তাকে। মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে পরে যশোর কোতোয়ালি থানায় জিডি করেন সোহেল হোসেন। ওই জিডির কপি নিয়ে মেয়েকে উদ্ধারের আশায় সোহেল ও তার স্ত্রী ডিবি অফিসে যান। এরপর ডিবি পুলিশ প্রতিবেশী আঞ্জুয়ারা বেগমের চালের ড্রাম থেকে সানজিদার লাশ উদ্ধার করে।

ডিবি পুলিশের এসআই মফিজুল ইসলাম জানান, তদন্তের একপর্যায়ে আঞ্জুয়ারা বেগমের কথাবার্তায় সন্দেহ হয়। পরে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সানজিদাকে হত্যা করে নিজ ঘরের চালের ড্রামে লুকিয়ে রাখার কথা স্বীকার করেন। এরপর শনিবার দিবাগত রাতে আঞ্জুয়ারার বাড়িতে গিয়ে চালের ড্রাম থেকে সানজিদার লাশ উদ্ধার করা হয়।

এদিকে একমাত্র মেয়ের লাশ উদ্ধারের পর বুক ফাটা কান্নায় ভেঙে পড়েন মা শরিফা খাতুন। এসময় তিনি মেয়ের হত্যাকারীর বিচার দাবি করেন।