ঐশ্বরিয়ার অভিনব সাজ

আনতারা রাইসা: তিনি ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। ১৯৯৪-এ ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ হওয়ার সময় থেকে আজ ২০১৯, ‘রাই সুন্দরী’র সৌন্দর্য বেড়েছে বৈ কমেনি। তিনি নিজেই যেন একটা সৌন্দর্যের ব্র্যান্ডের নাম। প্রতিবার এই ফ্যাশনিস্তা বাইরে বের হয়েছেন আর তাঁর ফ্যাশন দেখে মুগ্ধ হয়েছেন ভক্ত ও ফ্যাশনবোদ্ধারা।

২০০২ সাল থেকে অংশ নিচ্ছেন কান চলচ্চিত্র উৎসবের লাল গালিচায়।  তাঁর পরা পোশাক থেকে প্রতি বছর ফ্যাশন অনুপ্রাণিত হয়। ফরাসি প্রসাধনী ব্র্যান্ড লরিয়াল প্যারিসের এই শুভেচ্ছা দূতের কাছে এসব ফ্যাশন উইক যেন এখন নিত্য দিনের কাজ। লাল গালিচায় তার পোশাক নিয়ে মানুষের আগ্রহের যেন শেষ নেই। এই বছরে এই রাই সুন্দরীর বিভিন্ন লুক নিয়েই আজকের এই লেখা।

 

প্যারিস ফ্যাশন লুক

সম্প্রতি ঐশ্বরিয়া রাই কে দেখা দিয়েছে লরিয়েল আয়োজিত প্যারিস ফ্যাশন উইকে। পরে গিয়েছিলেন ইতালিয়ান ডিজাইনার গ্যাম্বাটিস্তা ভল্লির ফ্লোরাল প্রিন্টের গাউন।

বেগুনি জমিনে লাল ফুলের এই পোশাকটির বিশেষ বৈশিষ্ট্য এর কাটিংয়ে। সামনে ছোট করে কাটা , পেছনে লম্বা লেজ এবং পুরোটাই কুঁচি কুঁচি ঘের। কেবল ডান হাতের অনামিকায় আর বাঁ হাতের মধ্যমায় দুটি আংটি ছাড়া হাত, কান, গলায় কিছু নেই। সবচেয়ে নজর কেড়েছে তার কালো, বেগুনি আর গোলাপির মিশেলে স্মোকি আই। আর ফুলের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে লাল লিপস্টিক। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে পরেছিলেন সামনে পালক দেয়া হাই হিল । ব্যস এতটুকুতেই লাগছিল তাকে একদম সম্পূর্ণ।

 

কানের লাল গালিচা

এই বছরের ১৯ মে তাকে লাল গালিচায় দেখা গিয়েছিল এক সোনালি মৎস্যকন্যা রূপে। পরনে ছিল চাকচিক্যময় সোনালি- সবুজ ফিশ কাট গাউন। মনে হচ্ছিল যেন জলন্ত আগ্নেয়গিরির লাভা। দুই হাতের দুটি আংটি বাদ দিলে শরীরে আর কোনো গয়না ছিল না। তবে পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে নখে ছিল সোনালি নেইলপলিশ। ছিল স্বল্প অথচ অভিজাত ম্যাকাপ, ন্যুড লিপস্টিক আর স্মোকি আই।

ঐশ্বরিয়ার এই পোশাকের নকশা করেছেন জ্যঁ লুইস সাবাজি। চুল ছিল স্ট্রেট, সেই কালো খোলা চুল ছেড়ে দিয়েছেন। তাঁর গাউনের বিশেষত্ব হাতায় আর লম্বা লেজে। ডান হাত লম্বা, বাঁ পাশ স্লিভলেস।আর গাউনের লম্বা লেজে বড় থেকে ছোট মোট ছয়টি চোখা কাট রয়েছে। এই লুকে তাঁকে দেখে ভক্তরা রীতিমতো অবাক হয়ে গিয়েছিল।

 

সাদায় রাই সুন্দরী

এই বছরই কানের লালগালিচায় ঐশ্বরিয়াকে দেখা গেছে এই সাদা রাজকীয় পোশাকে। দেখে মনে হচ্ছিল যেন তিনি এক গল্পের রাজকন্যা। চুলগুলোকে পরিপাটি করে বেঁধে খোঁপা করেছিলেন। চোখে কাজল আর চকমকে সাদা আইশ্যাডো। কানে লম্বা দুলের হীরা থেকে যেন আলো ছিটকে বেরোচ্ছিল।

 

অনলাইন ডেস্ক/বিজয় টিভি

You might also like