বগুড়ায় সরকারের খাস খতিয়ানভুক্ত জলমহাল চিহ্নিত  

৩২

বগুড়ায় সহকারী কমিশনার কার্যালয়ের উদ্যোগে, সরকারের খাস খতিয়ানভুক্ত জলমহাল চিহ্নিত করে সাইনবোর্ড টানানো শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে সদর উপজেলা ভূমি অফিসের আওতাধীন ১২০টি সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত ক’তফসিলের জলমহাল চিহ্নিত করা হয়েছে; যা প্রতিবছর ইজারা দেয়ার মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব প্রাপ্তির কথা থাকলেও ঠিকমতো চিহ্নিত করা না থাকায়, গেল কয়েকবছর তার সবগুলো ইজারা দেয়া সম্ভর হয়নি। তবে, সরকারি সম্পদ রক্ষায় আস্তে আস্তে প্রতিটি উপজেলায় এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

বগুড়া সদর ভূমি অফিসের আওতাধীন ১২০টি সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত ক’ তফসিলের জলমহাল রয়েছে। যার মধ্যে ২০ একরের উর্ধ্বে ২টি এবং ২০ একরের নিচে ১১৮টি। চিহ্নিতকরণ না থাকায় গেল কয়েক বছর সবগুলো জলমহাল ইজারা দেয়া সম্ভব হয়নি।

এমতাবস্থায় সরকারি রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যে, প্রতিটি জলমহালে পুকুরের নাম এবং পরিমাণ উল্লেখ করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মালিকানাধীন সাইনবোর্ড টানিয়ে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এতে সাধারণ মানুষের চিনতে যেমন সুবিধা হচ্ছে ঠিক তেমনই সরকারি খাস জলমহালগুলোকে চিনে রাখছে নতুন প্রজন্ম।

সরকারি সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে দখল না হয়ে যাওয়ার কারণেই প্রথমে জলমহালগুলো চিহ্নিতকরণের এমন উদ্যোগ হাতে নিয়েছেন এ কর্মকর্তা।

এদিকে, সরকারি সম্পদ রক্ষায় আস্তে আস্তে প্রতিটি উপজেলায় এ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান জেলা প্রশাসক।

ভবিষ্যতে খুব সহজে এই জলমহালগুলো চিনতে প্রতিটি সাইনবোর্ড টানিয়ে তা গুগল ম্যাপে সেভ করে রাখা হচ্ছে। যাতে করে চিনতে না পারার অভাবে সরকারি রাজস্ব আদায় থেকে বঞ্চিত না হয় আর কোনো জলমহাল।

You might also like