বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সম্মেলন কাল

২৩২

রাত পোহালেই বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন । এজন্য শহরের আলতাফুন্নেসা খেলার মাঠে প্রস্তুত করা হয়েছে সম্মেলন মঞ্চ।

সম্মেলনকে ঘিরে শীর্ষ পদে আসতে এতোদিন দৌড়ঝাঁপে ছিলেন ডজনখানেক নেতা। কমিটিতে আসতে পুরনোদের সঙ্গে নতুন অনেকের নামও আলোচনায় আসছে। নগরে সাঁটানো বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন, তোরণও জানান দিচ্ছে প্রার্থী কারা!! শেষ পর্যন্ত আলোচনায়- ‘ইলেকশন’ না ‘সিলেকশন’।

পদ প্রত্যাশীরাও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের ওপর ভরসা রাখছেন। আর সমঝোতার মাধ্যমেই কমিটি হবে, এমনটি ধারণা দিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। দলীয় সূত্র জানায়, আগামীকাল বগুড়া আওয়ামী লীগ সম্মেলনের জন্য আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান এক নেতা প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে ইতিমধ্যে বৈঠক করেছেন।

যে যাই বলুক, শেষ পর্যন্ত এই বৈঠকে নেতাদের ভাগ্য নির্ধারণ নেত্রীর ইশারায় হতে পারে বলে মনে করছেন দলের নেতারা। দীর্ঘ পাঁচ বছর পর ৭ ডিসেম্বর বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।ইতিমধ্যে সম্মেলন উপলক্ষে সাড়া শহর জুড়ে বিভিন্নসাজে সাজানো।ব্যানার,ফেস্টুন আর বিলবোর্ডে ঢেকে আছে শহর।

৭ই ডিসেম্বর কাউন্সিলরদের ভোটের মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত সিলেকশনের মাধ্যমেও নেতা নির্বাচিত করা হতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে।ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে প্রার্থীরা মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছে।

এসব প্রার্থীদের অনেকেই তাদের সমর্থনে ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথা ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো ঢেকে দিয়েছেন। প্রতিনিয়ত চলছে মিছিল। আওয়ামী লীগ অফিস ও তার আশপাশে নেতাকর্মীদের পদচারণায় উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। ৩ ডিসেম্বর প্রার্থিতা বাছাই, ৪ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের পর আগামীকাল ৭ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

সম্মেলনে ৫১৫ জন কাউন্সিলর তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর আগে,২০১৪ সালের ১০ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওইদিন কেন্দ্রীয় নেতারা মমতাজ উদ্দিনকে সভাপতি, মজিবর রহমান মজনুকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা দেন।

২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন মারা যান। মমতাজ উদ্দিন জীবিত থাকা অবস্থায় বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি পদে তার কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন না।

কিন্তু এবারের চিত্র ভিন্ন। সভাপতি পদেই ৮ জন প্রার্থী ফরম কিনেছিলেন। সাধারণ সম্পাদক পদে ফরম কিনেছিলেনন ১৩ জন। তবে সম্মেলনকে ঘিরে সকল রকম সহিংসতা ঠেকাতে পুলিশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে তিন স্তরের ব্যবস্থা।সম্মেলন সফল করতে আইন শৃঙ্গলা বাহিনী সর্বদায় প্রস্তুত থাকবে বলে জানা গেছে। আগামী ৭ই ডিসেম্বর বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি

You might also like