বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত স্যার ফজলে হাসান আবেদ

ফজলে হাসান আবেদকে শেষ বিদায় জানাতে সকাল ১০টার দিকেই আর্মি স্টেডিয়ামে ভিড় করতে থাকে মানুষ। ব্র্যাকের কর্মীরা এসেছিলেন তাদের প্রিয় মানুষকে শেষবারের মতো দেখতে। শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন বিভিন্ন অঙ্গনে দেশের বিশিষ্টজনরা।

আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব শুরু হয়। চলে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তার কফিন আর্মি স্টেডিয়ামে নিয়ে আসা হয়। প্রথমেই রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের পক্ষে কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান তার সামরিক সচিবের একান্ত সচিব মেজর আশিকুর রহমান। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে শ্রদ্ধা জানান উপ-সামরিক সচিব কর্নেল সাইফ উল্লাহ।

ফজলে হাসান আবেদকে শেষ বিদায় জানাতে ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে মরদেহ কফিন (ছবি:সংগৃহীত)

জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা ফুলের শ্রদ্ধা জানান ফজলে হাসান আবেদের কফিনে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ও বাহাউদ্দিন নাছিমসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতাকে সঙ্গে নিয়ে।

সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, ঢাকার উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ম.তানিম ছাড়াও জাতিসংঘের ঢাকা কার্যালয়, বিকাশ, কারিতাস, বাংলা একাডেমীসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দল ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয় কর্মগুণে বিশ্বজুড়ে পরিচিতি পাওয়া এই বাংলাদেশির প্রতি।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আর্মি স্টেডিয়ামেই তার জানাজা হয়। জানাজায় অংশগ্রহণ করেন নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূস, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদসহ নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ। পরে বনানী কবরস্থানে শায়িত হন তিনি।

অনলাইন নিউজ ডেস্ক/বিজয় টিভি