বিদ্যুতায়নের উৎস নিয়ে স্টাডি করতে জাইকাকে অনুরোধ প্রতিমন্ত্রীর

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিতরণ ও সঞ্চালন খাতে প্রচুর কাজ করার সুযোগ রয়েছে। পদ্মা সেতুর বদৌলতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে দ্রুত উন্নয়ন সাধিত হচ্ছে। এ অঞ্চলে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সঞ্চালন এবং বিতরণ ব্যবস্থা আধুনিকায়নেও জাইকা কাজ করতে পারে। এ সময় তিনি চাহিদার ভিত্তিতে লোড পরিগণনার পদ্ধতি এবং প্রয়োজনীয় বিদ্যুতায়নের উৎস নিয়েও স্টাডি করার জন্য জাইকাকে অনুরোধ করেন।

বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে প্রতিমন্ত্রীর অফিস কক্ষে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন জাইকার নবনিযুক্ত প্রধান প্রতিনিধি তোমোহিদে ইচিগুচি। এ সময় তারা পারস্পারিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশে নিযুক্ত জাইকার নবনিযুক্ত প্রধান প্রতিনিধিকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘জাইকা বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী। মানবসম্পদ উন্নয়নে বাংলাদেশ পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটকে জাইকার সহযোগিতায় আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান করতে চাই।’

সমন্বিত মহা-পরিকল্পনা, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, বায়ুবিদ্যুৎ, বিদ্যুৎ ব্যবহারের প্যাটার্ন পরিবর্তন, শিল্পে জ্বালানির চাহিদা, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের আধুনিকায়ন, মহেশখালীর ভূমি উন্নয়ন, গ্যাস পাইপ লাইন ইত্যাদি বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হয়।

জাইকার নবনিযুক্ত প্রধান প্রতিনিধি তোমোহিদে ইচিগুচি বলেন, ‘বাংলাদেশ আমার পুরনো স্টেশন। বাংলাদেশের উন্নয়ন গতির সঙ্গেই জাইকার গতি থাকবে। বাংলাদেশ পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটের উন্নয়নে জাইকা কাজ করবে।’

বৈঠকে জাইকার বিদায়ী প্রধান প্রতিনিধি ইয়োহো হায়াকাওয়া উপস্থিত ছিলেন।

You might also like