ভৈরবে ফসল রক্ষা বাঁধ ও কৃষি জমির মাটি কাটার হিড়িক

আইন অমান্য করে ফসল রক্ষা বাধঁ ও কৃষি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে এভাবে নেয়া হচ্ছে ইটভাটায়। শুধু শ্রমিক দিয়ে নয়, মাটি কাটার মেশিন দিয়ে কেটে নেয়া হচ্ছে ফসলি জমির মাটি। এমন দৃশ্য কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ চরের কান্দার।

অভিযোগ রয়েছে, দরিদ্র শ্রেণীর কতিপয় কৃষককে অর্থের লোভ দেখিয়ে সামান্য টাকার বিনিময়ে কৃষি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে নেয়া হচ্ছে। এতে একদিকে যেমন উর্বরতা শক্তি হারাচ্ছে জমি, অন্যদিকে কমছে ফসলের উৎপাদন।

এছাড়া কয়লার পরিবর্তে কাঠ পুড়িয়ে দূষিত করা হচ্ছে এলাকার পরিবেশ। ইটভাঁটার কালো ধোঁয়ায় প্রতিবছর নষ্ট হচ্ছে ফসলের ক্ষেত। শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগে ভুগছে ভাটার পার্শ্ববর্তী এলাকার জনসাধারণ।

কৃষি বিভাগের স্থানীয় কর্মকর্তারা জানালেন, এভাবে ফসলি জমির মাটির উপরি অংশ কেটে নিলে তা স্বাভাবিক হতে সময় লাগে ৩০ বছর।

আর আইন অমান্য করে কৃষিজমি ও ফসল রক্ষা বাধঁ কেটে মাটি ইটভাটায় ব্যবহার করা হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানালেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান।

ভৈরবে সবমিলিয়ে মোট ইটভাটা রয়েছে ৩০টি। যার অধিকাংশেরই নেই কোনো কাগজপত্র।