মাঠ পর্যায়ে জনশুমারি চাই না : পরিকল্পনামন্ত্রী

১১

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, এবার জনশুমারি প্রকল্প নিয়ে যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, তাতে আর মাঠ পর্যায়ে জনশুমারি চাই না৷ এরপর থেকে আমি আশা করবো ডিজিটালভাবে জনশুমারির কাজ চলবে।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

জনশুমারি ও গৃহগণনা প্রকল্পটি শুরু থেকে এ পর্যন্ত বেশ কয়েকবার হোঁচট খেয়েছে। জানা গেছে, চলতি বছরেই দুই দফায় পিছিয়েছে জনশুমারি ও গৃহগণনার কাজ।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, চলতি বছরে (২০২১) করোনার কারণে পিছিয়ে গেলো জনশুমারির কার্যক্রম। ২৩ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সারা দেশে জনশুমারি ও গৃহগণনার পরিকল্পনা ছিল। তবে এটি ৯ মাসের মতো পিছিয়ে অক্টোবরে করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। ফলে আগামী ২৫ থেকে ৩১ অক্টোবর জনশুমারি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। এই এক সপ্তাহের মধ্যে সারা দেশের মানুষকে গণনার আওতায় আনার পরিকল্পনা ছিল। অথচ এই সময়ে শুমারি হচ্ছে না। নানা কারণে বার বার সময় বৃদ্ধি ও টেন্ডারের ঝামেলার কারণে মাঠ পর্যায়ে আর শুমারি চাই না।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে আমাদের অনেক সময় নষ্ট হয়েছে। জনশুমারির সময় আবারও পেছাবে। অক্টোবরে শুমারির কাজ হবে না। বিষয়টি আমি সরকার প্রধানকে (প্রধানমন্ত্রী) অবহিত করব। উনার দিকনির্দেশনা নেওয়া হবে। তবে শেষ পর্যন্ত আমরা সঠিক জনশুমারি করতে পারব। তবে আমরা মাঠপর্যায়ে আর শুমারি করব না। মাঠপর্যায় থেকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য আনা অনেক ঝামেলার। প্রকল্পে কেনাকাটা ও টেন্ডার করা আরও ঝামেলা। আমার বিশ্বাস এমন একটা সময়ে যাব যখন আর টেন্ডার করা লাগবে না। আঙুল দিয়ে ক্লিক করলেই জানতে পারব তথ্য।

You might also like