মাদক মামলায় জব্দ মোটরসাইকেল চুরি, গ্রেফতার ৩

নারায়ণগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারকের গাড়ি চালকের বাসা থেকে একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে। মোটরসাইকেলটি মাদক মামলার জব্দ করা হয়েছিল।

বুধবার (৮ জুন) ভোরে ফতুল্লার চর রাজাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ এ ঘটনায় চুরি হওয়া মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করতে না পারলেও শুক্রবার (১০ জুন) তিন জনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতাররা হলেন- আজিজ, হাবিব ও সাকিব। এ ঘটনায় গাড়ি চালক আল আমিন গ্রেফতার তিন জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছেন।

আল আমিন বলেন, জজ স্যারের গাড়িতে অনেক তেল খরচ হওয়ায় সরকারি কাজে বিভিন্ন স্থানে আসা যাওয়ার জন্য তার নির্দেশে নারায়ণগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সোনারগাঁও থানার মাদক মামলা নং ১০ (৪) ২২, ধারা- মাদক দ্রব্য আইনের ১৪ (গ) ৩৮ মূলে জব্দকৃত ইয়ামাহা ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেলটি আমাকে ব্যবহারের জন্য দেন। সেটির মূল্য ৪ লাখ ১৫ হাজার টাকা।

বুধবার ভোরে (৮ জুন) আমার বাসার নিচ থেকে সেই মোটরসাইকেলটি চুরি হয়ে যায়। পরে স্থানীয় একটি ফ্যাক্টরিতে থাকা সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে দেখতে পাই গ্রেফতাররা মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছেন।

মামলার তদন্তকারী অফিসার ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সোহাগ চৌধুরী বলেন, এ ঘটনায় তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। চুরি হওয়া মোটরসাইকেলটি এখনো উদ্ধার করা যায়নি। উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

এ বিষয়ে জানতে নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামানের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এদিকে আইনজীবীরা জানান, কোনো মামলার জব্দ করা আলামত বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত রাষ্টীয় কোনো কাজে ব্যবহারের বিধান নেই। তবে জব্দ করা গাড়ি প্রকৃত মালিকের জিম্মায় আদালত চাইলে শর্ত সাপেক্ষে দিতে পারেন।