মাদারীপুরে অপহরনের ৬ ঘণ্টা পর শিক্ষার্থী উদ্ধার, গ্রেফতার এক

মাদারীপুরে অপহরনের ৬ ঘন্টা পর দ্বাদশ শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় বেলায়েত খান (৪৫) এক সহযোগিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে সদর উপজেলার কালিকাপুর থেকে শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করা হয়। অপহৃত ওই শিক্ষার্থীর মাদারীপুর সরকারি সুফিয়া মহিলা কলেজের মানবিক বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ৯ এপ্রিল সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের হোসনাবাদ গ্রামের ফারুক হাওলাদারের ছেলে বাবু হাওলাদারের সাথে ওই শিক্ষার্থীর বিয়ে হয়। বিয়ের ৮দিনের মাথায় ওই শিক্ষার্থী বাবুকে তালাক দেয়। এরপর থেকে শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন সময় পথেঘাটে উত্যক্ত করে আসছে অভিযুক্ত বাবু। ভয়ে মেয়েটিকে রাজধানী ঢাকার এক আত্মীয়ের বাসায় রাখে পরিবার।

বৃহস্পতিবার বাড়িতে আসে মেয়েটি। তার বিয়ের জন্য শিক্ষার্থীর বাড়িতে মেহমান আসছে এমন খবরে সাবেক স্বামী বাবু দেশীয় অস্ত্র শস্ত্রসহ লোকজন নিয়ে মেয়েটির বাড়িতে হামলা চালায়। পরে ভাংচুর করে বেশকিছু প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। বাঁধা দিতে এলে নারীসহ ৩জনকে পিটিয়ে আহত করা হয়। একপর্যায়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ওই শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে নিয়ে যায় বাবু ও তার সহযোগিরা।

খবর পেয়ে অভিযানে নামে পুলিশ। রাত ৮টার দিকে সদর উপজেলার কালিকাপুর থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সবাই পালিয়ে গেলেও বাবুর সহযোগি বেলায়েত খানকে আটক করে পুলিশ। পরে রাতেই নির্যাতিতার মা বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় বাবুকে প্রধান আসামী করে ১৩ জনের নামে মামলা করেন।

শুক্রবার দুপুরে বেলায়েতকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠায় পুলিশ। এই ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন মেয়েটির পরিবার ও এলাকাবাসী।

You might also like