শেখ রাসেলের জীবনাচার বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হবে: পলক

শেখ রাসেলের জন্মদিন জাতীয় দিবস হিসেবে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে উদযাপন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এর মাধ্যমে তাঁর জীবনাচার বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হবে বলেও জানান তিনি।

রোববার রাজধানীর আগারগাঁয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) অডিটোরিয়ামে প্রথমবারের মতো ‘ক’ শ্রেণীর জাতীয় দিবস হিসেবে ‘শেখ রাসেল দিবস-২০২১’ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদসম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী এ তথ্য জানান ।

তিনি বলেন, পাশাপাশি, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নির্মমভাবে যেভাবে তাঁকে হত্যা করা হয়েছিল, যেভাবে দীর্ঘ ২১টি বছর দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল, সেই কালো অধ্যায়কেও এই দুই প্রজন্মকে জানাতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের পাশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্মৃতিবিজড়িত বাড়িতে শেখ রাসেল জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাঁর যখন জন্ম হয় বঙ্গবন্ধু তখন একটি নির্বাচনী প্রচার অভিযানে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের জন্য চট্টগ্রামে অবস্থান করছিলেন।

জন্মাবার সময় বাবাকে কাছে না পেলেও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শেখ রাসেলের চির বিদায় হয়, তার পিতার সাথেই। সেদিনের সেই কাল রাত্রিতে ঘাতকরা একে একে পরিবারের আঠারো জন সদস্যকে নির্মমভাবে হত্যা করে, নিষ্পাপ শেখ রাসেলকেও সেইদিন খুনীরা রেহাই দেয়নি বলেও উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী।