শ্রীলঙ্কায় কারফিউ জারি

শ্রীলঙ্কায় পুলিশের গুলিতে এক বিক্ষোভকারী নিহত হবার পর রামবুক্কানায় শহরের পুলিশ বিভাগে কারফিউ জারি করা হয়েছে। মঙ্গলবার দেশটির পুলিশের মুখপাত্র জানায়, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত কারফিউ থাকবে।

অর্থনৈতিক সঙ্কট নিয়ে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে শ্রীলঙ্কায় প্রথমবারের মতো পুলিশ আজ বিক্ষোভকারীদের উপর গুলি চালায়, একজন নিহত এবং বেশ কয়েকজন আহত হয়। পুলিশের একজন মুখপাত্র নিশ্চিত করেছেন যে জনতা হিংস্র হয়ে উঠলে এবং তাদের দিকে ঢিল ছুঁড়লে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালাতে হয়। রাজধানী কলম্বো থেকে ৯৫ কিলোমিটার দূরে মধ্য শ্রীলঙ্কার রামবুক্কানায় একটি মহাসড়ক অবরোধ করে তেলের তীব্র ঘাটতি ও উচ্চমূল্যের প্রতিবাদে জনগণ

তীব্র জ্বালানি ঘাটতির কারণে শ্রীলঙ্কা জুড়ে স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভের জন্ম দিয়েছে, হাজার হাজার বিক্ষুব্ধ গাড়িচালক টায়ার জ্বালিয়ে রাজধানীতে যাওয়ার প্রধান সড়ক অবরোধ করে। পুলিশের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, রামবুক্কানা পুলিশ বিভাগে কারফিউ জারি করা হয়েছে।

১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর থেকে দেশটির সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক সংকট এটি। রাষ্ট্রপতি গোটাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগের আহ্বান জানিয়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে বিক্ষোভ হচ্ছে। খাদ্য, ওষুধ এবং জ্বালানী সহ গুরুত্বপূর্ণ আমদানির জন্য শ্রীলঙ্কার ডলার ফুরিয়ে গেছে।

যে হাইওয়েতে বিক্ষোভ হয়েছিল সেটি কেন্দ্রীয় শহর ক্যান্ডিকে রাজধানী কলম্বোর সাথে সংযুক্ত করেছে। শ্রীলঙ্কা জুড়ে জ্বালানি স্টেশনগুলিতে পেট্রোল এবং ডিজেল ফুরিয়ে যাওয়ায় শহরটি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

শ্রীলঙ্কায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত জুলি চুং দ্বীপরাষ্ট্রটির ক্রমবর্ধমান সহিংস পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি টুইট করেছেন, ‘রামবুক্কানা থেকে বেরিয়ে আসা ভয়ঙ্কর সংবাদে আমি গভীরভাবে দুঃখিত। আমি যে কোনও সহিংসতার নিন্দা জানাই – তা প্রতিবাদকারী বা পুলিশের বিরুদ্ধেই হোক – এবং সব পক্ষ থেকে সংযম ও শান্ত থাকার আহ্বান জানাই। একটি পূর্ণ, স্বচ্ছ তদন্ত অপরিহার্য এবং শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের জনগণের অধিকার অবশ্যই বহাল রাখা হোক।’

You might also like
%d bloggers like this: