সংস্কারের অভাবে ধ্বংসের মুখে ঠাকুরগাঁওয়ের দুটি রাজবাড়ী

ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলায় অবস্থিত রাজা টঙ্কনাথের রাজবাড়ী। উনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে এটি নির্মাণ করেন টঙ্কনাথ। তার স্ত্রী রাণী শংকরী দেবীর নামে এই এলাকার নামকরণ করা হয় রাণীশংকৈল।

টঙ্কনাথের রাজবাড়ীতে ঢোকার প্রধান সড়কটির ওপরে ছিল একটি সুন্দর সেতু। যা এখন আর নেই। সেখান থেকে একটু এগোলেই রাজবাড়ীর প্রধান ভবন। এককালে জাঁকজমকপূর্ণ কারুকাজে খচিত এই প্রাচীন ভবনটিতে এখনো অনেক কারুকাজ ভবনের দেয়ালে শোভা পাচ্ছে। তবে কালের বিবর্তনে এখন এর অবস্থা অনেকটা জীর্নদশা। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে দরজা-জানালাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র। ছাদসহ বিভিন্ন স্থানে গজিয়েছে গাছপালা। খসে পড়ছে পলেস্তারা।

একই অবস্থা হরিপুর উপজেলার কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত হরিপুর রাজবাড়ীরও। উনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি ঘনশ্যাম কুন্ডুর বংশধররা এই রাজবাড়ী নির্মাণ করেন। শতাব্দীর প্রাচীন এই রাজবাড়ীটির অবস্থাও এখন ভগ্নদশা। সন্ধ্যা হলেই চলে মাদক সেবনসহ নানা অপকর্ম। অনেকেই আগ্রহভরে দৃষ্টিনন্দন এসব স্থাপনা দেখতে আসেন। তবে ভগ্নদশা দেখে মন খারাপ করে ফিরে যান তারা।

রাজবাড়ি দুটির ঐতিহ্য ধরে রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান।

সংস্কার ও যথাযোগ্য সংরক্ষণ করা হলে এই দুই রাজবাড়ি হতে পারে জেলার আকর্ষণীয় পর্যটনকেন্দ্র, এমনটাই মনে করেন ঠাকুরগাঁওবাসী।