সরিষাবাড়ীতে কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ৪

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে কিশোরী সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, জয়নাল আবেদীন, পল্লব হাসান, সাকিব হোসেন এবং নিহতের সাবেক স্বামী মাহিম।

পুলিশ জানায়, সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের গেন্দার পাড়া গ্রামের ১৬ বছরের কিশোরী সোনিয়া আক্তারের সাথে একই ইউনিয়নের কুলপাল গ্রামের মাহিম প্রেমের সম্পর্কে জড়ান। দুই পরিবারের অজান্তেই ৭ মাস পূর্বে বিয়ে হয় তাদের। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই বিভিন্ন সময় সোনিয়ার পিতার কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা দাবি করে স্বামী মাহিম।

স্বামীর দাবিকৃত যৌতুকের টাকা এনে দিতে পারায়, সোনিয়াকে বিভিন্ন সময় মারধর করে পাষন্ড স্বামী। নিরুপায় হয়ে স্বামীর আবদার মেটাতে সোনিয়া তার নানা বাড়ীতে থাকা ৪ ভরী স্বর্ণের গহনা ও ১৭ হাজার টাকা গোপনে মাহিমকে দেয়। বিষয়টি জানা জানি হলে পারিবারিক বৈঠকে টাকা ও স্বর্ণের গহনা ফেরত দিতে বলায়, মাহিম সম্প্রতি ডিভোর্স দেয় সোনিয়াকে।

তবে এরপরেও মাহিম তার বন্ধুদের মাধ্যমে সোনিয়ার সাথে নিয়মিত সম্পর্ক অব্যাহত রাখে। এক পর্যায়ে গত বৃহস্পতিবার সোনিয়াকে মাহিম তার বন্ধু পল্লবের বাসায় ডেকে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। এসময় সোনিয়া জ্ঞান হারালে তার মুখে বিষ ঢেলে দেয় মাহিম।

পরে ওইদিন রাতেই সোনিয়াকে হাসপাতালে রেখে পালিয়ে যায় মাহিমের বন্ধুরা। এঘটনায় নিহত কিশোরীর পিতা ফিরোজ মিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করলে আসামীদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।