সাতক্ষীরায় তরুণ-তরুণীকে আটক রেখে নির্যাতন, আটক-২

৪০

সাতক্ষীরার স্টেডিয়াম এলাকায় শিক্ষার্থী তরুণ-তরুনীকে চার ঘন্টা আটক রেখে মারপিট ও টাকা মোবাইল ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় পলাশপোল এলাকার পিকে ক্লাবের তরুণরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ওই তরুণ-তরুণীকে আটকে রাখা হয়। পরে বেলা আড়াইটার দিকে পুলিশ পিকে ক্লাব থেকে আটক করে রাখা ছেলেটিকে উদ্ধার করে। এ সময় ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে দুই যুবককে আটক করা হয়।

আটক সুমন শহরের পলাশপোল এলাকার মিজানুর রহমানের ছেলে ও বিল্লাল হোসেন একই এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে।

আটককৃত ছেলেটি সদরের পরানদাহ এলাকার এবং মেয়েটি সদর উপজেলার ধূলিহর ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের মুক্তার গাজীর মেয়ে সারজিনা ইসলাম । তাৎক্ষনিক ছেলেটির নাম জানা যায়নি। তবে

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শহরের বাসিন্দা প্রমী জানান, শিক্ষার্থী ওই ছেলে ও মেয়ের মধ্যে প্রেমজ সম্পর্ক রয়েছে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে স্টেডিয়ামের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় পলাশপোল পিকে ক্লাবের ২০-২৫ জন ছেলে তাদের বিরুদ্ধে আপত্তিকর অভিযোগ এনে ক্লাবের মধ্যে আটকে রাখে। পরে মেয়ে ও ছেলেটিকে শারীরিক নির্যাতন করে। মেয়েটিকে কুপ্রস্তাব দেয়। মেয়েটির কাছে ত্রিশ হাজার টাকা ও ছেলেটির কাছে বিশ হাজার টাকা দাবি করে। এছাড়া তাদের সঙ্গে থাকা মোবাইল ও টাকা ছিনিয়ে নেয়।

প্রমি আরও জানান, পরে মেয়েটিকে দাবিকৃত টাকা নিয়ে আসার জন্য ছেড়ে দিয়ে ছেলেটিকে আটকে রাখে। পরে মেয়েটি সদর থানায় গিয়ে ঘটনাটি জানালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ছেলেটিকে উদ্ধার করে ঘটনাস্থল থেকে ২জনকে আটক করে।

 সদর থানার ডিউটি অফিসার মো. জাকির হোসেন এ বিষয়ে  তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানান।

সদর থানার সাব ইন্সপেক্টর কিশোর বলেন, আপত্তিকর অভিযোগ এনে পিকেক্লাবের কিছু ছেলে তাদের আটকে রেখেছিলো। তাদের মারপিট করে আপত্তিকর ছবি তুলতে চেয়েছিলো বলে মেয়েটি অভিযোগ জানায়। এছাড়া তাদের কাছ থেকে কিছু টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নিয়েছে। পরে মেয়েটি থানায় ঘটনা জানালে ঘটনাস্থল থেকে একটি বাই সাইকেল ও ছেলেটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

 

নিউজ ডেস্ক / বিজয় টিভি

You might also like