১০ লাখ মানুষকে হজের অনুমতি দেবে সৌদি

১৮

করোনার বিধি নিষেধ উঠে যাওয়ায় এবছর হজে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। চলতি বছর দেশ ও দেশের বাইরের ১০ লাখ মানুষকে হজের অনুমতি দিয়েছে সৌদি সরকার।

সৌদি আরবের হজ বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, চলতি বছর ৬৫ বছরের বেশি বয়সী কোন ব্যক্তি হজে অংশ নিতে পারবেন না। হজে যাওয়া ব্যক্তিদের করোনার পূর্ণ ডোজ টিকা গ্রহণও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়াও সৌদির বাইরে থেকে যেসব ব্যক্তি হজে অংশ নিতে চান, তাদের করোনার পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ ফলাফলও জমা দিতে হবে। পাশাপাশি অংশগ্রহণকারীদের স্বাস্থ্য পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হবে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। এর আগে করোনা মহামারির কারণে গেল দুই বছর নানা বিধিনিষেধের মধ্য দিয়ে সীমিত পরিসরে হজ আয়োজন করে সৌদি আরব।

শনিবার এক টুইটে এ ঘোষণা দিয়েছে সৌদির হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়। এতে বলা হয়েছে, হজযাত্রীদের বয়স ৬৫ বছরের নিচে হতে হবে এবং পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়া থাকা লাগবে। আর সৌদির উদ্দেশে রওনা হওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ সনদ লাগবে। স্বাস্থ্য পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বর্ধিত হজযাত্রীর এই সংখ্যা কোটা অনুযায়ী দেশগুলোর মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হবে।

মন্ত্রণালয় বলেছে, প্রত্যেক হজযাত্রীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। হজ পালনের সময় তাঁদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা সুরক্ষায় নেওয়া সব ধরনের পূর্বসতর্কতামূলক পদক্ষেপ মেনে চলতে হবে।

করোনা মহামারির কারণে গত বছর সীমিতসংখ্যক হজযাত্রী হজ পালন করতে পেরেছেন। সরকারি তথ্য অনুযায়ী, গত বছর ৫৮ হাজার ৭৪৫ জন হজ পালন করেছেন। মহামারির আগের বছরগুলোতে হাজির সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়িয়ে যেত।

মন্ত্রণালয় বলছে, সর্বোচ্চসংখ্যক হজযাত্রীকে হজ পালন এবং মসজিদে নববী পরিদর্শনের সুযোগ দিতে আগ্রহী সৌদি আরব। একই সঙ্গে তাঁদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা সুরক্ষা দেওয়াও সরকারে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।

You might also like
%d bloggers like this: